কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কুইজ: সবচেয়ে বেশিবার শেয়ার করে ৩ জন পেলেন দেড় লাখ টাকা পুরস্কার

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০২১, ১৭:২৯
আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০২১, ১৭:২৯

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কুইজের ৫০তম দিন ছিল ১৯ জানুয়ারি। বিশেষ এই দিন উপলক্ষ্যে সাপ্তাহিক লাইভ লটারিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল এই কুইজের আগের দিনগুলোর কয়েকজন বিজয়ীকে। বিজয়ীদের সঙ্গে আলাদা তিন জন বিশেষ অতিথি ছিলেন, যারা কুইজগুলো সবচেয়ে বেশিবার শেয়ার করেছেন। লাইভে সারপ্রাইজ হিসেবে তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে পুরস্কৃত করা হয়।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষীকীতে তাঁর রাজনৈতিক ও ব্যক্তিজীবনকে মানুষের মাঝে, বিশেষ করে দেশের তরুণ সমাজের মাঝে আরও ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে ১০০ দিনব্যাপী এ অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতার শুরু হয়েছে গত ১ ডিসেম্বর।

প্রতি সপ্তাহে প্রিয়.কমের ফেসবুক এবং ইউটিউব চ্যানেলে একটি লাইভ অনুষ্ঠান প্রচারিত হয়, যেখানে লাইভ লটারির মাধ্যমে কুইজ শেয়ারকারীদের মধ্য থেকে ৭ জন বিজয়ী নির্বাচিত করা হয়। প্রতিটি অনুষ্ঠানে একজন বিশেষ অতিথি থাকেন, যিনি বিজয়ীদের সরাসরি ফোন দিয়ে অভিনন্দন জানান এবং তাদের অনুভূতির কথা জানতে চান। কিন্তু ১৯ জানুয়ারি, মঙ্গলবারের লাইভ অনুষ্ঠানটি ছিল অনেক দিক থেকেই ভিন্ন। যারা প্রতিনিয়ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কুইজটি শেয়ার করে অন্যদের মাঝে ছড়িয়ে দিচ্ছেন, তাদের প্রতি সম্মান ও কৃতজ্ঞতা জানাতে প্রিয়.কম এমন তিন জনকে লাইভে আমন্ত্রণ জানায়, যাদের শেয়ার থেকে বেশি মানুষ কুইজে অংশ নিয়েছেন।

লাইভ অনুষ্ঠানে প্রিয়.কমের প্রধান নির্বাহী জাকারিয়া স্বপনের কাছ থেকে তারা জানতে পারেন যে তারাই কুইজগুলো বেশিবার শেয়ার করেছেন। জাকারিয়া স্বপন তাদের প্রত্যেকের জন্য ৫০ হাজার টাকা করে মোট দেড় লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেন।

ভাগ্যবান এ তিন জন হলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সুজন আলী, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রাশিদ হোসেন এবং গণমাধ্যমকর্মী জামিল আহমেদ।

কুইজের ৫০তম দিন উপলক্ষ্যে এদিন অন্যান্য সপ্তাহের মতো ৭ জনের বদলে ১০ জনকে পুরস্কৃত করা হয়। এর বাইরেও কোনো দিন বিজয়ী হননি, কিন্তু নিয়মিত কুইজে অংশ নেন, এমন একজন প্রতিযোগীকে একটি ল্যাপটপ পুরস্কার দেওয়া হয়।

মঙ্গলবারের লাইভ লটারির আরেকটি বিশেষ দিক ছিল আগের দিনগুলোর এসব বিজয়ীরাই সেদিনের নতুন বিজয়ীদের ফোন দিয়ে অভিনন্দন জানান।

জামিল আহমেদ, রাশিদ হোসেন এবং সুজন আলী ছাড়াও মঙ্গলবারের লাইভে আরও যুক্ত ছিলেন ৮ জানুয়ারির তৃতীয় বিজয়ী মো. মনিরুল ইসলাম, ১৭ জানুয়ারির প্রথম বিজয়ী ওয়াসিমুল বারী লোটাস, লাইভ লটারির চর্তুথ সপ্তাহের বিজয়ী শিপা চাকমা, ১৫ জানুয়ারির চতুর্থ বিজয়ী শাহাব আলী এবং ১৪ জানুয়ারির ৯৪তম বিজয়ী মো. জাহিদ হোসেন রিপন।

এই অতিথিরাই মঙ্গলবারের ১০জন বিজয়ীকে লাইভ অনুষ্ঠানে ফোন দিয়ে অভিনন্দন জানান।

এছাড়া এদিন আরও পৃরস্কৃত হয়েছেন ঢাকার শিক্ষার্থী অধরা জাহান, যিনি প্রথম থেকে কুইজে অংশগ্রহণ করে আসলেও এখনো বিজয়ী হতে পারেননি। প্রিয়.কমের প্রধান নির্বাহী জাকারিয়া স্বপন তাঁকে একটি ল্যাপটপ পুরস্কারের ঘোষণা দেন।

উল্লেখ্য, গত ৫০ দিনে ৫,১০,৫২৬ জন প্রতিযোগী ৪০,৩৮,৪০১ বার এ কুইজে অংশগ্রহণ করেছেন।

বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এ অনলাইন কুইজ প্রতিযোগীতার আয়োজন করেছে- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি, সহায়তা করেছে- শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, কুইজটির স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার- তথ্য মন্ত্রণালয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ আর এটি বাস্তবায়ন করছে প্রিয়.কম।

কুইজে অংশ নিতে https://mujib100.gov.bd অথবা https://quiz.priyo.com ওয়েবসাইট অথবা প্রিয় অ্যাপ (ডাউনলোড লিংক https://dl.priyo.com) এর যেকোনো একটি মাধ্যমে নিবন্ধন করে অংশ নিতে হবে। একজন প্রতিযোগী একটি আইডি দিয়ে প্রতিটি কুইজে একবার অংশগ্রহণ করতে পারবেন। প্রত্যেক প্রতিযোগীকে নাম, ঠিকানা, ছবি, ফোন নাম্বার, ইমেইল/সোশ্যাল মিডিয়া আইডি ব্যবহার করতে হবে, যা বিজয়ীদের ক্ষেত্রে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্মনিবন্ধন সনদের সঙ্গে যাচাই করা হবে। একজন প্রতিযোগীকে একবার নিবন্ধন করলেই চলবে। পূর্বে নিবন্ধন করে থাকলে নতুন করে নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই। ভুল তথ্য দিয়ে অংশগ্রহণ করলে তাকে পরবর্তীতে অযোগ্য বিবেচনা করা হবে। প্রতিযোগিতায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের উপর এমসিকিউ পদ্ধতিতে প্রশ্ন থাকছে।

প্রতিদিন একটি নতুন কুইজ দেওয়া হয় এবং কুইজের মেয়াদ ২৪ ঘণ্টা (০০:০১ মিনিট হতে ২৩:৫৯ মিনিট পর্যন্ত)। প্রতিদিন সঠিক উত্তরদাতাদের মধ্যে থেকে লটারির মাধ্যমে ১০০ জন বিজয়ীর সবাই পাবেন ১০০ জিবি করে মোবাইল ডাটা এবং তাদের মধ্যে প্রথম ৫ জন পাবেন স্মার্টফোন। এ ছাড়া পুরো প্রতিযোগিতায় গ্রান্ড প্রাইজ হিসেবে থাকবে মোট ১০০টি ল্যাপটপ।