শখের বসে অনেকেই বাগান করেন। ছবি: সংগৃহীত

বাগান করার দারুণ ৭টি উপকারিতা

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:৫১
আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:৫১

(প্রিয়.কম) শখের বসে অনেকেই বাগান করেন। এই বাগানটা ঘরের শোভা বাড়ায়, তা থেকে ফুল-ফল পাওয়া যায়। কিন্তু তা ছাড়াও কিন্তু আপনার শরীর ও মনের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে পারে বাগান, এমনকি ছোট কয়েকটি গাছ। বাগানে কাজ করলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে, ওজন থাকে স্বাভাবিক আর মন-মেজাজটাও ভালো থাকে। মূলত পরিবেশের সান্নিধ্যে থাকার কারণেই স্ট্রেস কমে যায়। দেখে নিন কীভাবে আপনাকে সুস্থ রাখে বাগান করার কাজটি।

১) ক্যালোরি পোড়ায়

বাগানে বসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাম ঝরানোতে মাঝারি মাত্রায় ব্যায়াম হয়। এক ঘণ্টা বাগানে কাজ করলে ৩৩০ ক্যালোরির মতো খরচ হয়। একই সময় হাঁটার চেয়ে বেশি ক্যালোরি খরচ হয় এভাবে। এ ছাড়া যারা বাগান করেন, তারা শারীরিকভাবে বেশি ছিপছিপে থাকেন প্রতিবেশীদের তুলনায়।  

২) রক্তচাপ কমায়

সপ্তাহে বেশ কয়েক দিন মাঝারি মাত্রায় ব্যায়াম অর্থাৎ বাগান করলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। বাগান করা, বাগানের পাতা পরিষ্কার করা—এসব কাজ ৩০ থেকে ৪৫ মিনিট করলে আদর্শ মাত্রায় ব্যায়াম হয়।

৩) রোদে থাকলে হাড় শক্ত হয়

আপনি বাগানে বা বারান্দায় থাকলে শরীরে রোদ পড়ে বেশ কিছু সময়। ত্বকে রোদ পড়ার কারণে আপনার শরীর ভিটামিন ডি তৈরি করে। ভিটামিন ডি থাকার কারণে শরীর ক্যালসিয়াম শোষণ করে এবং হাড় শক্ত হয়। তবে বাগানে কাজ করার সময় অবশ্যই সানস্ক্রিন ব্যবহার করবেন।

৪) বাগানে ফলানো খাবার খাওয়া বেশি স্বাস্থ্যকর

শরীরের ঘাম ঝরিয়ে যদি বাগানে নিজের হাতে সবজির চাষ করেন, তাহলে সেই টাটকা, স্বাস্থ্যকর সবজি খেলে আপনার স্বাস্থ্যটা ভালো থাকবে। প্রতিদিন অন্তত দুই কাপ সবজি ও দেড় কাপ ফলের সবটাই আসতে পারে আপনার এই বাগান থেকে।  এমনকি বাগানে ফলানো হলে এই ফল ও সবজি খাওয়ার বিষয়ে বাচ্চাদের উৎসাহও বেশি হবে।

৫) স্ট্রেস কমে

২০১৭ সালের এক মেটা-অ্যানালাইসিস গবেষণায় দেখা যায়, বাগান করার কাজে স্ট্রেস কমে, ডিপ্রেশন ও অ্যাংজাইটির উপসর্গ কমে আসে। এমনকি যারা আঘাত, স্ট্রোক, অস্ত্রোপচার ও অন্যান্য সমস্যা থেকে সেরে উঠছেন, তাদের জন্য বাগান করার সুপারিশ করা হয়। এতে তাদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের উপকার হতে পারে। তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়াতেও পারে বাগান করার কাজটি।

৬) প্রতিবেশীদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো হয়

যারা পরিবার ও প্রতিবেশীদের সঙ্গে মিলেমিশে বাগানের কাজ করে, তাদের মেজাজ ভালো থাকে। সবার মাঝে ঐক্য ও সুসম্পর্ক বজায় থাকে। এমনকি বাগান করার সুবাদেই অনেকের মাঝে সম্পর্ক ভালো হয়ে ওঠে।

৭) আপনাকে সুখী করে

গাছের পরিচর্যার কাজটি আপনার মানসিক সুখ বাড়াতে পারে, মেজাজ ভালো করে, আপনার মাঝে আশার সঞ্চার করে এবং ভবিষ্যতের আশা বাড়াতে পারে।

সূত্র: গুড হাউজকিপিং

প্রিয় লাইফ/আজাদ চৌধুরী