কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

কাস্টমস্ ও ভ্যাট কর্মকর্তারাও করোনাযোদ্ধা

সমকাল প্রকাশিত: ০৩ জুন ২০২০, ১৩:১৮

‘উন্নয়নের অক্সিজেন রাজস্ব,’ একটি দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি নির্ভর করে সে দেশের অর্থ বা রাজস্বের ওপর। অর্থমন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের কাস্টমস, ভ্যাট ও ইনকাম-ট্যাক্স এর মাধ্যমে রাজস্বের সিংহভাগ অর্জিত হয়ে থাকে। বাজেট প্রণয়ন, উৎপাদন, আমদানি-রপ্তানি ব্যবস্থা, মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণ এবং দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ যাবতীয় কাজের পরিকল্পনা ও অর্থের/রাজস্বের যোগান দিয়ে থাকে অর্থমন্ত্রণালয় এর অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ। দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে এবং করোনাভাইরাস প্রতিরোধের সরাঞ্জামাদির আমদানি প্রক্রিয়া বেগবান রাখতে বাংলাদেশ কাস্টমস্ ও ভ্যাট কর্মকর্তাগণ সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন। বন্দরসমূহে কর্মরত সন্দেহভাজন কয়েকজনের নমুনা পরীক্ষা করে কভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ এর অধিক ধরা পড়েছে।



সবার টেস্ট করা হলে এ সংখ্যা আরো অনেক বেড়ে যাওয়ার আশংকা স্বাভাবিকভাবেই রয়েছে। তবুও রাজস্ব যোদ্ধারা কাজ করে যাচ্ছেন। দেশের এ দূর্যোগের সময়েই শুধু নয়, কাস্টমস্ কর্মকর্তাগণ অন্যান্য সময়েও সপ্তাহে সাতদিন, চব্বিশ ঘন্টাই কাজ চালিয়ে যান বন্দরসমূহে। করোনাআক্রান্ত রোগীর সেবা প্রদানের লক্ষ্যে যারা দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন, তাদের জীবিকার সংস্থানের জন্যে হলেও রাজস্ব সংগ্রহ কাজ চলমান রাখা অত্যাবশ্যক।বাংলাদেশের জল-স্থল-বিমান বন্দরগুলোতে করোনা প্রতিরোধের প্রয়োজনীয় ভেজালমুক্ত কীট, পিপিই, স্যানিটাইজার, মাস্ক ও মেডিকেল সামগ্রীর আমদানি কার্যক্রম সচল রাখতে কাস্টমস্ এর কার্যক্রম সক্রিয় রয়েছে, না হলে পরিস্থিতি আরো ভয়ঙ্কর ও হতে পারত।

খুশীর কথা হলো, বাংলাদেশ সরকার করোনা প্রতিরোধক এসব পণ্য আমদানি শুল্কমুক্ত ঘোষণা দিয়েছে, যার ফলে দ্রুত যাচাই-বাছাই করে পণ্য খালাস ও দেশের অভ্যন্তরে নির্বিঘ্নে প্রেরণের ব্যবস্থা করে আসছেন রাজস্ব কর্মকর্তারা।বাংলাদেশ কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের কর্মকর্তাগণ রাজস্ব আদায়ের পাশাপাশি জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায়ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন। যেমন, শিশু খাদ্য ও  খাদ্যের কাঁচামাল, জীবন রক্ষাকারী ওষুধ, শিল্পকারখানার মেশিনারি, মেডিকেল যন্ত্রপাতি, কৃষিপণ্য, অস্ত্র-বিস্ফোরকসহ আরো বিভিন্ন রকমের আমদানি সেনসেটিভ পণ্য পরীক্ষণ ও শুল্কায়নে যেমন দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন তেমনি তৈরিপোষাক, মৎস্য ও কৃষিসহ অন্য রপ্তানিযোগ্য পণ্য পরীক্ষণ ও শুল্কায়নেও নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তারা।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও