কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

জামালপুরে দলীয় এমপির সাথে আ.লীগ নেতার ফাঁস হওয়া ফোনালাপে তোলপাড়

সময় টিভি প্রকাশিত: ২৬ মে ২০২০, ১৫:৪৫

জামালপুরে দলীয় এমপির সাথে আওয়ামী লীগ নেতার মোবাইল ফোনের কথোপকথন সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হবার ঘটনায় জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এই ঘটনায় ইঞ্জিনিয়ার মোজাফফর হোসেন এমপির আবেদনে ওই আওয়ামী লীগ নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ।

জামালপুরে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবু ১০ মে জামালপুর সদর উপজেলায় বেশ কয়েকটি এলাকায় সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর চাল উদ্ধার নিয়ে সদর আসনের দলীয় এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোজাফফর হোসেনের সাথে টেলিফোনে ৩২ মিনিট ১৯ সেকেন্ড কথা বলেন।

আসাদুজ্জামান বাবুকে এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোজাফফর হোসেনই ফোনটি করেন। বলেন, তুমি ফেসবুকে কি লিখেছ? এতেই শুরু হয় নেতা আর এমপি-র মধ্যে নানা বিষয়ে তর্কবিতর্ক। আসাদুজ্জামান বাবু চাল চোরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেন। তবে এমপির বক্তব্য- এটা আমার কাজ না। প্রশাসন আইনগত ব্যবস্থা নেবে। ফোনালাপে এমপির কাজের নানা বিষয় নিয়ে প্রতিবাদ করেছেন বাবু। আর পাল্টা জবাবও দিয়েছেন এমপি মোজাফফর হোসেন।

তিনি বলেছেন, কাজ করে যাচ্ছি এটাই আমার দোষ, আমার বিরুদ্ধে কথা বলো। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরীর সাথে এমপির যে মনের মিল নেই সেটাও বলেছেন এমপি মোজাফফর হোসেন। এছাড়া কৃষকলীগের মিটিংয়ে তাকে নিয়ে উল্টাপাল্টা কথা বলার বিষয়টিও তার কানে গেছে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। জবাবে আসাদুজ্জামান বাবু বলেছেন, আপনি কার কথা বেশি শোনেন।

দলীয় সূত্র জানায়, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবুর সাথে ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর জামালপুর সদর-৫ আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোজাফফর হোসেন গত ১১ মে জামালপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক বরাবর আসাদুজ্জামান বাবুর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন করেন। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ্ এবং সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহাম্মদ চৌধুরী গত ১৭ মে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবুকে কথোপকথনের বক্তব্য দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী বিবেচিত হওয়ায় এবং দলের ভাবমূর্তি জনমনে ক্ষুণ্ণ হওয়ায় কেন চূড়ান্ত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না মর্মে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর জবাব দিতে বলা হয়েছে।

তবে সাংগঠনিক নিয়মে এমপি মোজাফফর হোসেনকেও জেলা আওয়ামী লীগ একই নোটিশ দেওয়ার দরকার ছিল বলে মনে করেন আসাদুজ্জামান বাবু। আসাদুজ্জামান বাবু জানিয়েছেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহাম্মদ চৌধুরী ,এমপি মোজাফফর হোসেনকে বলেছেন আপনাকেও কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া উচিত।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও