ফাস্টফুড বলতে সবার আগে বার্গারকেই বুঝি আমরা। ছবি: সংগৃহীত

মাত্র একটি বার্গার খেলে যে ভয়াবহ ক্ষতি হয় আপনার!

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:০৩
আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:০৩

(প্রিয়.কম) মাঝে মাঝে সবারই ফাস্টফুড খেতে ইচ্ছে হয়। এই এক টুকরো পিজ্জা, কয়েকটা ফ্রাই, আর জিভে জল আনা একটা বার্গার। সবাই জানি যে বার্গার তেমন একটা স্বাস্থ্যকর খাবার না। তবে মাঝে মাঝে খেতে দ্বিধাবোধ করেন না কেউই। আপনি কি জানেন, মাত্র একবার বার্গার খেলেও স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে?  

বিজ্ঞান বলে, জাংক ফুড মাত্র একবার খাওয়াটাই ক্ষতি করার জন্য যথেষ্ট। ফাস্টফুডের ওপর করা এক বড় গবেষণায় দেখা যায়, সারা বিশ্বেই ফাস্টফুডের আকার, অর্থাৎ বার্গারের আকার, ফ্রাইয়ের ঝুড়ি, ড্রামস্টিকের কলেবর বেড়েই চলেছে, যা স্বাস্থ্যের জন্য মোটেই ভালো নয়।

ফাস্টফুড বলতে সবার আগে বার্গারকেই বুঝি আমরা। সাধারণ একটা কোয়ার্টার পাউন্ড প্যাটি বার্গারে থাকে ৫০০ ক্যালোরি, ২৫ গ্রাম ফ্যাট, ৪০ গ্রাম শর্করা, ১০ গ্রাম চিনি আর ১০০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম। এটা খাওয়ার ১৫ মিনিট পর থেকে হজম হয়ে আপনার রক্তে মিশতে শুরু করে। রক্তে এসে মেশে বিশাল পরিমাণে গ্লুকোজ। একে নিয়ন্ত্রণে আপনার শরীর বেশ করে ইনসুলিন নিঃসরণ করে। ইনসুলিনের আধিক্যের কারণে কয়েক ঘণ্টা পর আবার ক্ষুধা লাগে। নিয়মিত বার্গার খাওয়া হলে তাই ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্স দেখা দিতে পারে শরীরে, আর তা থেকে দেখা দিতে পারে ডায়াবেটিস।

শুধু তাই না, ২৫ গ্রাম ফ্যাটের অন্তত অর্ধেকটাই স্যাচুরেটেড ফ্যাট। সুস্থ মানুষকে স্যাচুরেটেড ফ্যাট বেশি আছে এমন খাবার খাওয়ানোর পর তাদের ধমনির কার্যকলাপে সমস্যা দেখা দেয়। এটা আর্থেরোস্ক্লেরোসিসের প্রথম ধাপ, যা থেকে দেখা দিতে পারে বিভিন্ন হৃদরোগ।

এখানেই শেষ নয়। বার্গারে থাকা বিপুল পরিমাণ সোডিয়াম এই সমস্যা আরো বাড়ায়। আমেরিকান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনে থাকা একটি গবেষণা বলে, বেশি পরিমাণে সোডিয়াম খাওয়ার ৩০ মিনিটের মাথায় রক্তনালির কাজে ব্যাঘাত ঘটে।

বার্গার খাওয়া মানে ক্যালোরির আধিক্য। বার্গারের সঙ্গে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, উইংস, মায়োনেজ, ড্রিঙ্কস বা বার্গারে থাকা চিজ, ডিম বা সসেজের কারণে এক বসায় ১০০০ ক্যালোরি খাওয়া হয়ে যায় সহজেই। এত ভারী খাবার খাওয়ার চার ঘণ্টার মাঝে রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইডস ও ফ্যাটি এসিড বেড়ে যায়। ইনফেকশন হলে শরীর যেমন খারাপ হয়, তেমনটা হতে পারে এমন জাংক ফুড খাওয়ার পর। তাই ভবিষ্যতে জাংক ফুড খাবার ইচ্ছে হলে এসব বিষয় মনে করুন।

সূত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট

প্রিয় লাইফ/আজাদ চৌধুরী