‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’- সব দলের মালিক বিসিবি!

মানবজমিন প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-১২ ০০:০০:০০

বিপিএল-এর সপ্তম আসর নির্ধারিত সময়ে ডিসেম্বরেই শুরু হবে। তবে বদলে যাচ্ছে অনেক কিছুই। এবার আসরের নাম হবে ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’। সেই সঙ্গে সবগুলো দলের মালিক হবে বাংলাদশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। সাতটি ফ্র্যাঞ্চাইজি সবগুলোই নিজেদের দায়িত্বে চালাবে বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে এমনটিই জানিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে নিশ্চিত করেছেন এ বছর আর নতুন করে কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে তারা চুক্তি করবে না। হলে সেটি পরের মৌসুমে। শুধু তাই নয়, ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর দাবিও সব মানা হবে না। তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন যে বিপিএল’র প্রথম পর্ব শেষ হয়ে গেছে। নতুন চুক্তির বিষয়ে তাদের সঙ্গে বসেছিলাম। আমাদের সঙ্গে আলোচনায় তারা বেশকিছু দাবি জানিয়েছে। যা আমাদের আসরের নিয়মের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। সেগুলোর সঙ্গে আমরা কোনো কিছুই মিলাতে পারছি না। শুধু তাই নয়, বেশ কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি চাইছে না একই বছর দু’টি বিপিএল চালাতে। সবকিছু চিন্তা করেই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, এবারের বিপিএল বিসিবি নিজেরাই চালাবে। আমরা কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি নিতে চাচ্ছি না। এই সিদ্ধান্তের আরেকটি কারণ আপনারা জানেন যে, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী আগামী বছর। তাই আমরা চাচ্ছি এবারের আসরটি আমরা বঙ্গবন্ধুর নামে উৎসর্গ করতে। বঙ্গবন্ধু বিপিএল নামে এই বছরেরটা আয়োজন করবো।’বিসিবি’র এমন সিদ্ধান্তে অনেকগুলো ফ্র্যাঞ্চাইজি খুশি হবে বলেও জানান বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। তিনি বলেন, ‘এবারের বিপিএল আমরা চালাবো, আমরা কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজিকে দিচ্ছি না। প্রতিটি দলই ঠিক থাকবে, শুধু বিপিএল’র ম্যানেজমেন্ট, ক্রিকেটার, টাকা, থাকা-খাওয়া সবই বিসিবি দেখবে। এতে করে যারা এবার দু’টি আসর খেলতে চাইছে না, বা যারা বলছে বিপিএল লোকসান, তাদের টাকা বেঁচে যাবে এবং তারা বেশ খুশিই হবে বলে আমি মনে করি। দলগুলোর সব মালিকানা বিসিবি’র হাতে। অনেকটা বিগ ব্যাশের মতো হবে।’ অন্যদিকে কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি না থাকলেও টিম স্পন্সর নেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি। সেই ক্ষেত্রে দলের নামেও পরিবর্তন আসতে পারে বলে তিনি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ঢাকা, খুলনা, চিটাগং নাম থাকবে। তবে টিম স্পন্সর যদি কেউ হতে চায় আমরা নিতে পারি। সেই ক্ষেত্রে নামে পরিবর্তন আসতে পারে স্পন্সররা চাইলে।’ তাহলে কি বিসিবি এখন থেকে সবগুলো দল চালাবে! নাকি একটি আসরের জন্য এই সিদ্ধান্ত? এ বিষয়ে নাজমুল হাসান বলেন, ‘একটি আসর অন্তত করে দেখি কী হয়। কারণ এখানে প্রায় সব ফ্র্যাঞ্চাইজি অনেকগুলো দাবি করেছে যেগুলো মানা সম্ভব নয়। আমরা চালিয়ে দেখি তারা যে লোকসানের কথা বলে, সমস্যার কথা বলে সেগুলো হয় কি না! আমাদের বুঝতে হবে তারা যে বলছে সেগুলো কতটা সঠিক।’ বিসিবি সভাপতি অনেকটাই মানতে নারাজ দলগুলোর এখানে লোকসান হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘যদি তাই হতো তাহলে কেন তারা ৮০ লাখ টাকার ক্রিকেটার ৪ কোটি টাকায় কিনছে? নিশ্চিয় লাভ হয় বলেই এটা করে। আমারতো মনে হয় লাভ হচ্ছে কিন্তু তারা আরো বেশি লাভ চায়। আর বিপিএল-এ যারা আসবে তারাতো দেশের ক্রিকেটে অবদান রাখতে আসবে। এত লাভের কথা ভাবলে কী করে হবে!’বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান নিশ্চিত করেছেন এই বছর আর ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে নতুন করে চুক্তি হচ্ছে না। হলে সেটি পরের আসরের জন্যই হবে। বিপিএল নিয়ে তৈরি করা সব নিয়ম-কানুন প্রকাশ করবে সেগুলো মেনে কেউ আসতে চাইলে তাদের সঙ্গেই চুক্তি হবে। তিনি বলেন, ‘এবার আর নতুন করে চুক্তি হচ্ছে না। কারণ তদের দাবি মানতে গেলে আমাদের নতুন করে অনেক কিছু করতে হবে অনেক পরিবর্তন করতে হবে। এটি অনেক সময়সাপেক্ষ বিষয়। আমরা আগামী বছর চুক্তি করার আগে সব নিয়ম প্রকাশ করবো। তা দেখে যদি কেউ রাজি হয় চুক্তি করবে। কিন্তু এসে কোনো নিয়ম পরিবর্তনের দাবি তুলতে পারবে না। এই সব নিয়ম ভাঙা অনেক মানা হয়েছে আর না। এখন থেকে কোনো অনিয়ম সহ্য করবে না বিসিবি।’

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

আরও