ছবিটি প্রতীকী, ইন্টারনেট হতে সংগৃহীত।

নিশ্চিত বার্ধক্য চাইলে যৌবনে অবশ্যই করবেন যে ৫টি কাজ

রুমানা বৈশাখী
বিভাগীয় প্রধান (প্রিয় লাইফ)
প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯:১০
আপডেট: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯:১০

(প্রিয়.কম) সন্তান থাকলেই তারা বৃদ্ধ বয়সে আপনার দেখাশোনা করবে, এমনটা ভাবা একেবারেই ঠিক নয়। সবার কাছেই নিজ সন্তান প্রিয়। কিন্তু সেই সাথে এটাও মাথায় রাখতে হবে যে প্রিয় সন্তানও একদিন দূরে চলে যেতে পারে। নিজের জীবন নিয়ে এতটাই ব্যস্ত হয়ে যেতে পারে যে আপনার দেখাশোনা করা তার পক্ষে সম্ভব হবে না কিংবা সেই ইচ্ছাটাও থাকবে না।

অন্যদিকে আপনার আগেই সন্তানের মৃত্যু হতে পারে, কোনো কঠিন রোগ হতে পারে কিংবা বৃদ্ধ পিতামাতার দেখাশোনা করার মত আর্থিক অবস্থা সন্তানের নাও থাকতে পারে।

তাহলে উপায়? বৃদ্ধ বয়সটা কি দুঃখ-কষ্টেই কেটে যাবে? একদম নয়। সময় থাকতেই সেরে রাখুন এই পাঁচটি কাজ। তাহলে বৃদ্ধ বয়সটা তো নিশ্চিন্তে কাটবেই, বড় ধরনের যেকোনো বিপদও মোকাবিলা করতে পারবেন।

সম্পূর্ণ আলাদা সঞ্চয় করুন

রিটায়ারমেন্ট ফান্ড নামে একটি আলাদা সঞ্চয়ের খাত তৈরি করুন। এমনিতে তো টাকা অবশ্যই জমাবেন। কিন্তু বৃদ্ধ বয়সের জন্যেও একদম আলাদা একটি সঞ্চয় বা ইন্সুরেন্স অবশ্যই থাকা উচিত। যত যাই হোক না কেন, এই ফান্ডে কখনোই হাত দেবেন না।

সন্তানকে দিন সঠিক শিক্ষা

সন্তান আপনার পাশে থাকবে কি থাকবে না, সেটা পুরোটাই নির্ভর করবে আপনার যৌবনের ওপরে। সন্তানকে সময় দিন, তাদের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তুলুন, তাদেরকে সঠিক মূল্যবোধ শিক্ষা দিন। মনে রাখবেন, সন্তান আপনাকে যা করতে দেখবে ঠিক তাই শিখবে। তাই নিজকের পিতা-মাতা ও শ্বশুর-শাশুড়ির সঙ্গে ভালো আচরণ করুন।

সন্তানের জন্য খরচ করুন, তবে বুঝে

সন্তানের জন্যে খরচ অবশ্যই করবেন, কিন্তু নিজের সামর্থ্যের বাইরে খরচ করে নিঃস্ব হয়ে যাবেন না। চাইবা মাত্রই সবকিছু দিয়ে দেওয়া পিতা-মাতার কাজ নয়। বরং পিতা-মাতার কাজ সন্তানকে যোগ্য করে তোলা যেন সে নিজেই নিজের সকল চাহিদা পূরণ করতে পারে।

মাথার ওপরে ছাদ

সবার পক্ষে হয়তো সম্ভব হয় না। কিন্তু খুব চেষ্টা করুন নিজের একটি বাড়ি করার। মাথার ওপরে নিশ্চিত একটি ছাদ থাকলে শেষ বয়সটা অনেক সহজ হয়ে যায়।

যে ভুলটি একেবারেই করবেন না

অনেক পিতা-মাতাই নিজের জীবিত অবস্থাতে সকল সম্পদ সন্তানের নামে দিয়ে দেন বা সবকিছু বিক্রি করে দেন। এই কাজটি একদমই করবেন না। সন্তানকে নিজের উপার্জন নিজেই করে নিতে দিন। আপনার সম্পদ তারা অবশ্যই পাবে, কিন্তু আপনার মৃত্যুর পর। সেভাবেই ছোট থেকে তাদেরকে শিক্ষা দিয়ে বড় করুন। নিজের ও জীবন সঙ্গীর জীবিত অবস্থায় সম্পদ ভাগ করে দেওয়া ভীষণ ভুল একটি কাজ।

সময় বদলাচ্ছে, বদলে যাচ্ছে চিন্তাধারা। পরিবর্তিত সময়ের সাথে নিজেকে মানিয়ে নেওয়াই জীবন। তাই দেরি না করে জীবনের শেষ সময়ের প্রস্তুতি শুরু হয়ে যাক, এখনই।

প্রিয় লাইফ/আর বি/রুহুল