কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

ইউরোপে ক্রমেই গ্রহণযোগ্যতা হারাচ্ছে বাংলাদেশিদের অ্যাসাইলাম আবেদন

ডেইলি স্টার প্রকাশিত: ০২ মার্চ ২০২১, ১০:৫১

উন্নত জীবনের আশায় বাংলাদেশসহ তৃতীয় বিশ্বের অনেক দেশের হাজারো মানুষ পাড়ি জমান ইউরোপের অনেক দেশে। তাদের একটি বড় অংশ অবৈধভাবে ইউরোপে পা রাখেন। তারা যখন অবৈধভাবে ইউরোপে আসেন তখন তাদের সেখানে বৈধ হওয়ার আবেদন করতে হয়। এর অংশ হিসেবে তারা প্রথমে বেছে নেন রাজনৈতিক আশ্রয় বা পলিটিক্যাল অ্যাসাইলামকে।

যদি ইউরোপের কোনো দেশের আদালতে কোনো নাগরিকের রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন গৃহীত হয় তাহলে তিনি বৈধভাবে সে দেশে থাকার অনুমতি পান। তিনি সে দেশের নিয়ম অনুযায়ী স্বাধীনভাবে বসবাস করতে পারেন। সরকারের পক্ষ থেকে তাকে প্রতি মাসে নির্দিষ্ট পরিমাণ ভাতা দেওয়া হয়। যেকোনো পেশাভিত্তিক কাজে তিনি নিযুক্ত হতে পারেন। তবে তিনি আইনত নিজ দেশের পাসপোর্ট ব্যবহার করতে পারেন না। তাকে সে দেশের সরকার শরণার্থী স্ট্যাটাসের পাশাপাশি পাসপোর্ট দেয়। এটি ‘এলিয়েন’স পাসপোর্ট’ নামে পরিচিত। এ ধরনের বিশেষ পাসপোর্টের মাধ্যমে তিনি নিজ দেশ ছাড়া অন্য সব দেশে যাতায়াত করতে পারেন।

প্রতি বছর কত সংখ্যক মানুষ অবৈধ পথে ইউরোপের দেশগুলোতে আসেন?— এমন প্রশ্নের উত্তর সঠিকভাবে দেওয়া সম্ভব না হলেও ইউরোপীয় বর্ডার ও কোস্টগার্ড এজেন্সি ফ্রন্টেক্স বলছে— প্রতি বছর অনুপ্রবেশের দায়ে ইউরোপের নানা দেশের সীমান্ত থেকে প্রায় এক লাখ পঁচিশ হাজার মানুষকে আটক করা হয়।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

আরও