কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

গৃহবধূকে নির্যাতন করে মাথার চুল কর্তন

সমকাল আক্কেলপুর প্রকাশিত: ২১ অক্টোবর ২০২০, ২২:০০

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে শামীমা আক্তার নামের এক গৃহবধূকে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন ও মাথার চুল কেটে দিয়েছে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন। উপজেলার করমজি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হলে পুলিশ ওই গৃহবধূর স্বামী রুহুল আমিন, দেবর শাহীন হোসেন এবং শ্বশুর আবুল কালাম আজাদকে গ্রেপ্তার করেছে। আক্কেলপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ খান এ তথ্য জানান। বুধবার বিকেলে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পাঁচ বছর আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার পোওতা গ্রামের মাহাতাব সরদারের মেয়ে শামীমা আক্তারের সঙ্গে রুহুল আমিনের। তাদের তিন সন্তান রয়েছে। তবে যৌতুকের দাবিতে প্রায়ই শামীমাকে স্বামীসহ তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন নির্যাতন করে আসছিল। ১৪ অক্টোবর গৃহবধূকে তার বাবার বাড়ি থেকে তিন লাখ টাকা নিয়ে আসার জন্য চাপ দেয় রুহুল আমিন। এতে ওই গৃহবধূ অস্বীকৃতি জানালে রুহুল ক্ষিপ্ত হয়ে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। একপর্যায়ে দেবর শাহীন হোসেন এবং শাশুড়ি নাজমা বেগম গৃহবধূর দুই হাত বেঁধে রাখে। এরপর রুহুল কাঁচি দিয়ে গৃহবধূর মাথার অর্ধেক চুল কেটে দেয়। পরে গৃহবধূ তার ওপর নির্যাতনের ঘটনাটি বাবার বাড়ির লোকজনকে জানান। ওই ঘটনার পাঁচ দিন পর ১৮ অক্টোবর রাতে যৌতুকের দাবিতে রুহুল গৃহবধূকে আরেক দফায় লাঠি দিয়ে মারধর করে হাত-পা দড়ি দিয়ে বেঁধে আঙিনায় ফেলে রাখে। খবর পেয়ে পরদিন গৃহবধূর পরিবারের লোকজন এলে রুহুল তাদের ওপরও চড়াও হয়। একপর্যায়ে গুরুতর আহত অবস্থায় গৃহবধূকে তার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চেয়ে গত মঙ্গলবার গৃহবধূর মা মনোয়ারা বেগম স্বামী, দেবর, শ্বশুর ও শাশুড়ির নামে থানায় মামলা করেন। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

আরও