কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

ইতালিতে বাংলাদেশিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

মানবজমিন প্রকাশিত: ০৫ আগস্ট ২০২০, ০০:০০

ঢাকায় করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্টের বিষয়টি ধরা পড়ার জেরে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া যাত্রীদের ইতালি প্রবেশে ফ্লাইটের ওপর জারি করা নিষেধাজ্ঞা খানিকটা শিথিল করা হয়েছে। ইতালির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে আইকাও জানিয়েছে, বাংলাদেশসহ ১৭টি দেশ থেকে ফ্লাইট এবং যাত্রী পরিবহনে বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ৩১শে আগস্ট থেকে কমিয়ে ১০ই আগস্ট রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত করা হয়েছে। পরিবর্তিত পরিস্থিতি বিবেচনায় ১০ই আগস্টের আগে নতুন নোটিশ বা ডেটলাইনে না এলে ১১ই আগস্ট থেকে নিষেধাজ্ঞার কবল থেকে বাংলাদেশসহ অন্য দেশ থেকে ফ্লাইট এবং যাত্রী পরিবহন উন্মুক্ত হতে পারে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ থেকে ইতালিগামী যাত্রী পরিবহনে কাতার এয়ারওয়েজ আগামী ৫ই অক্টোবর পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল। তবে ইতালি কর্তৃপক্ষ বা আইকাওয়ের ১১ই জুনের নোটিশে বাংলাদেশসহ ১৭ দেশের নাগরিক বা ট্রানজিট যাত্রীর জন্য নিষেধাজ্ঞার ডেটলাইন ছিল ৩১শে আগস্ট। অনৈতিক লেনদেনে ঢাকার রিজেন্ট হাসপাতালসহ বিভিন্ন ল্যাব প্রদত্ত করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট প্রদানের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশি যাত্রী পরিবহনে দীর্ঘমেয়াদি নিষেধাজ্ঞা জারির দাবিও করেছিল ইতালির কট্টরপন্থিরা। কিন্তু না, রোম অতটা কঠোর হয়নি। বাংলাদেশ মিশনসহ রোম ও মিলানের বাংলাদেশ কমিউনিটি বলছে, ফ্লাইটের ওপর বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞার কারণে এবং করোনা পরিস্থিতি ঘোলাটে হওয়ার প্রেক্ষিতে গত প্রায় চার মাস ধরে বাংলাদেশে আটকা পড়ে আছেন কয়েক হাজার বাংলাদেশি। যারা ইতালিতে তাদের বাসস্থান বা কর্মস্থলে ফেরার প্রহর গুনছেন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ মিশনসহ নিষেধাজ্ঞার কবলে থাকা দেশগুলোর তরফে ইতালির পররাষ্ট্র দপ্তরে সকাল-বিকাল যোগাযোগ-তদবির অব্যাহত রয়েছে নিষেধাজ্ঞা শিথিলের জন্য।  রোমের বাংলাদেশ মিশন এবং মিলানের কনস্যুলেটের দায়িত্বশীল সূত্র মানবজমিনকে  জানিয়েছে, করোনা টেস্টে বাংলাদেশিসহ নিষেধাজ্ঞার কবলে থাকা দেশগুলোর নাগরিকদের ৯০-৯৫ ভাগের নেগেটিভ রিপোর্ট আসার প্রেক্ষিতে বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞা খানিকটা শিথিল করে ১০ই আগস্টের মধ্যে নামিয়ে আনা হয়েছে। এটি আর না বাড়ার আশা করছে বাংলাদেশ মিশন। স্মরণ করা যায়, গত ৬ই জুলাই ইতালির রোমে অবতরণ করা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইটে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক যাত্রীর কোভিড-১৯ শনাক্ত হওয়ার জেরে ঢাকা ফেরত ফ্লাইট ও যাত্রীদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল দেশটি, যা এখনো বলবত আছে। করোনা শনাক্ত হওয়া ওই যাত্রীদের কাছে ‘কোভিড-১৯ নেগেটিভ’ এবং ‘ভ্রমণের জন্য নিরাপদ’ মর্মে জাল কাগজপত্র ছিল। ৮ই জুলাই ১৫১ বাংলাদেশি যাত্রীকে দেশটিতে প্রবেশ করতে দেয়নি ইতালি। বাংলাদেশ থেকে কাতার এয়ারওয়েজের একটি ট্রানজিট ফ্লাইটে ইতালি যাওয়া ওই যাত্রীদের পুনরায় ঢাকায় ফেরত পাঠানো হয়। পরবর্তীতে কাতার এয়ারওয়েজের দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইতালির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে বাংলাদেশ থেকে ইতালিগামী সব ফ্লাইট/যাত্রী নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘৮ই জুলাই থেকে শুরু করে ৫ই অক্টোবর পর্যন্ত যেকোনো দেশের নাগরিক কিংবা যেকোনো দেশ হয়ে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া কোনো ফ্লাইট ইতালিতে অবতরণের অনুমতি পাবে না। এর আগে জুনে বাংলাদেশ থেকে চীন, জাপান ও কোরিয়াতে বিশেষ ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। সর্বশেষ বাংলাদেশসহ ৭ দেশের নাগরিকের সরাসরি কুয়েতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও