কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

দুর্জয়ের বিরুদ্ধে ‘নীরব’ দুদক

বাংলাদেশ প্রতিদিন প্রকাশিত: ২৭ জুন ২০২০, ০৮:১০

‘অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীদের সুখে থাকতে দেবে না দুদক’- গত ৯ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবসে এ হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেছিলেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। কিন্তু এ কথা শুধুই ‘কথার কথা’-তে পরিণত হয়েছে মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের ক্ষেত্রে। টানা দুই বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে নিজের ও স্ত্রী ফারহানা রহমান হ্যাপির নামে গড়ে তুলেছেন অবৈধ সম্পদের পাহাড়। কিন্তু ‘অভিযোগ’ না থাকার অজুহাতে দুর্জয়ের সেই পাহাড়ের ‘নীরব দশর্ককের’ ভূমিকা পালন করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। ২০১৪ সালে সংসদ সদস্য হওয়ার পরেই হাতে যেন তিনি ‘আলাদিনের চেরাগ’ পেয়ে যান। উচ্চ মাধ্যমিক পাস করা দুর্জয় প্রথমবার এমপি হওয়ার পরপরই বাড়তে থাকে আয় ও সম্পদ। রাতরাতি বনে যান একটি পাওয়ার প্লান্টের পরিচালক। আর আয়ও বেড়ে যায় আট গুণ।

দুর্জয় ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হলফনামায় নিজেকে চেজ ট্রেডিং লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং চেজ পাওয়ার লিমিটেডের পরিচালক হিসেবে উল্লেখ করেছেন। যদিও ২০১৪ সালের দশম সংসদ নির্বাচনের আগে তিনি যে হলফনামা দাখিল করেন, সেখানে তার পেশার বিবরণীতে পাওয়ার প্লান্টের পরিচালক পদটি ছিল না। সে সময় তিনি দু’টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত বলে উল্লেখ করেছিলেন। যার একটিতে তিনি নিজেকে চেজ ট্রেডিং লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং অন্যটিতে ফুওয়াং ফুড অ্যান্ড বেভারেজের পরিচালক হিসেবে দাবি করেছিলেন। অর্থাৎ প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পাঁচ বছরের মধ্যেই তিনি বনে যান পাওয়ার প্লান্টের পরিচালক।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সময় তিনি বছরে আয় দেখিয়েছেন ৪৩ লাখ ৭৫ হাজার ২শ টাকা। এক্ষেত্রে কৃষিখাত থেকে বছরে ৫২ হাজার ৮শ টাকা, পারিতোষিক ও ভাতাদি থেকে আয় ২৩ লাখ ৪২ হাজার ৪শ টাকা এবং মৎস্য চাষ থেকে আয় দেখিয়েছেন ১৯ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

এই হলফনামা দেওয়ার পাঁচ বছর আগে দশম সংসদ নির্বাচনের সময় বছরে আয় দেখিয়েছিলেন ৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা। যেখানে কৃষিখাতে ১ লাখ টাকা এবং ব্যবসা থেকে ৪ লাখ ৭০ হাজার টাকা আয় ছিল তার। অর্থাৎ প্রথমবার এমপি হওয়ার পর পাঁচ বছরের মধ্যে তার বাৎসরিক আয় বাড়ে ৭ দশমিক ৬৮ গুণ।

এমপি হওয়ার মাত্র পাঁচ বছরের মাথায় দুর্জয়ের ‘আঙুল ফুলে কলাগাছ’ হওয়ার বিষয়টি এখন মানিকগঞ্জ শহরের ‘টক অব দ্য টাউন’। কিন্তু দুর্জয়ের প্রতিপত্তি ও তার ক্যাডার বাহিনীর ভয়ে কেউই মুখ দিয়ে কথা বের করতে পারছে না।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও