কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

অভিষেকেই সিনিয়র পার্টনারকে ঝাড়ি মেরেছিলেন আশরাফুল!

জাগো নিউজ ২৪ প্রকাশিত: ২২ জুন ২০২০, ১৬:৫৯

‘এইটা কী শট খেললেন আপনি?’- কেউ কি বলতে পারবেন কে কবে কখন কোথায় এ মন্তব্য করেছিলেন? কোনরকম ইঙ্গিত ছাড়া যে কার জন্যই এর সঠিক জবাব দেয়া খুব কঠিন। অনুমান করাও সহজ নয়। তবে প্রশ্নবোধক বাক্যের শেষ শব্দই বলে দিচ্ছে প্রশ্নকর্তা বয়সে ছোট, কারণ সম্বোধনটা ‘আপনি।’

এখানে প্রশ্নটি শোনা ব্যাটসম্যান ছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল। আর তিনি আউট হওয়ার পর তাকে অমন কড়া প্রশ্ন করেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। এটুকু শুনে হয়তো ভাবছেন, বুলবুল হয়তো একটি আলগা ডেলিভারিতে আউট হয়েছিলেন। তাই হতাশ আশরাফুল বলে বসেন, এইটা কী শট খেললেন? এতে খুব আশ্চর্য্যজনক প্রশ্ন মনে হবে না। কিন্তু যদি শোনেন বাংলাদেশের বিস্ময়কর ব্যাটিং প্রতিভা মোহাম্মদ আশরাফুল তার টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচেই এক সিনিয়র পার্টনারকে অমনভাবে ‘ঝাড়ি’ দিয়েছিলেন। নাহ! হাওয়া থেকে পাওয়া খবর নয়। কথাটি জানিয়েছেন বুলবুল নিজেই।

ক্রীড়া সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদের ইউটিউব লাইভে এক প্রশ্নের জবাবে বুলবুলের মুখে উচ্চারিত হয়েছে মোহাম্মদ আশরাফুলের নাম। বিশ্লেষক আমিনুল ইসলামের কাছে সঞ্চালক নোমান মোহাম্মদের প্রশ্ন ছিল, ‘আশরাফুলের যে অভিষেক টেস্টের সেঞ্চুরি, সেখানে দীর্ঘক্ষণ তার পার্টনার হিসেবে ছিলেন। আপনাদের একটা বড় জুটিও (১২৬ রান) আছে। ঐ জুটি গড়ার সময় আশরাফুলের কোন বিষয়টি আপনাকে সবচেয়ে বেশি মুগ্ধ করেছিল?’ সোজাসাপাটা জবাব দিতে গিয়ে আশরাফুলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ আমিনুল বুলবুল।

শুধু প্রশংসা করাই নয়, সে ম্যাচের চালচিত্র বর্ণনা করে বুলবুল জানিয়ে দেন, ১৯ বছর আগে আশরাফুল হতাশ হয়ে তাকে অমন কঠিন প্রশ্ন করেছিলেন। সে দিনের ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে বুলবুলের সংলাপ, আমার ছিল ওটা ৫-৬ নম্বর টেস্ট আর আশরাফুলের প্রথম টেস্ট। খুব স্বাভাবিকভাবে সিনিয়র হিসেবে ব্যাটিং করার সময় আমিনুল বুলবুল তাকে মানে আশরাফুলকে গাইড করছিলেন। বলছিলেন দেখে খেলতে। বুলবুলের ভাষায়, ‘আমি আশরাফুলকে বলছিলাম, জয়সুরিয়া এই জায়গায় বল করছে, ভাস এ লাইন-লেন্থে বল ফেলছে। মুরালি এই জায়গায় বল করছে।’

কিন্তু অবাক করা সত্য হলো, খানিক পর আশরাফুলই তাকে বুদ্ধি-পরামর্শ দিতে শুরু করেছিলেন। সেটাই খুব ভাল লেগেছিল আমিনুল বুলবুলের। তিনি রীতিমতো বিমূঢ় হয়ে গিয়েছিলেন, আর ভাবছিলেন এতটুকুন একটি ছেলে, বয়স বড় জোর ১৬-১৭, সে আমাকে গাইড করছে। বুলবুল বলে ওঠেন, ‘সব থেকে ভাল লেগেছিল যে জিনিসটা, তা হলো সে কিছুক্ষণ পরে আমাকে গাইড করতে শুরু করে দিয়েছিল। একটি ছোট্ট ছেলে যে জীবনের প্রথম টেস্ট খেলছে, সে উল্টো আমাকে গাইড করেছিল।’ তার উপলব্ধি ছিল, একজন অভিষিক্ত এক সদ্য কৈশোর পার করা ১৭ বছরের তরুণ জীবনের প্রথম টেস্ট খেলতে নেমে তার সিনিয়র পার্টনারকে পরামর্শ দিতে পারে- সেটা শুনেও বিশ্বাস করা কঠিন ছিল।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও