কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

রোগী দেখলেই দৌড়ে পালান ডাক্তার-নার্স!

ডেইলি বাংলাদেশ প্রকাশিত: ১৮ জুন ২০২০, ২১:৩১

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (কুমেক) প্রতিষ্ঠার পর ২৮ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের জন্য। গত ৩ জুন হাসপাতালটিতে ১০ শয্যার আইসিইউসহ ১৫৪ শয্যার করোনা ইউনিটের চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। কুমিল্লা সদর আসনের এমপি মুক্তিযোদ্ধা ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী  আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহারের প্রচেষ্টা ও কুমেক হাসপাতালের বর্তমান পরিচালক ডা. মজিবুর রহমানের সহযোগিতায় হাসপাতালটিতে আইসিইউ ও করোনা ইউনিট চালু করা হয়।

যে আইসিইউ ইউনিটের জন্য কুমিল্লাবাসীকে দীর্ঘ ২৮ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে, সেই আইসিইউ ইউনিটের সেবা নিয়েই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। করোনা আক্রান্ত মরণাপন্ন রোগীরা সেখানে একদিকে যেমন ভালো সেবা পান না। অপরদিকে সিসি ক্যামেরা না থাকায় এ ইউনিটে দায়িত্বরত চিকিৎসকেরা তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করেন কি-না তাও তদারকি করতে পারছেন না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ফলে মাত্র ১৫ দিনের ব্যবধানে শুধুমাত্র কুমেক হাসপাতালের এ ইউনিটেই মারা গেছেন ভর্তি হওয়া ৭২ জন রোগীর মধ্যে  ৩৯ জন রোগী।

আর সব মিলিয়ে গত ১৫ দিনে করোনা ও করোনার উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসা করতে আসা মোট ৯২ জন রোগী এখানে মারা যায়। আর এ সময় চিকিৎসা না নিয়ে পালিয়ে যায় ৬ জন। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. সাজেদা বেগম জানান, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনুষ্ঠানিকভাবে করোনা রোগীদের জন্য চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হয় গত ৩ জুন। গত ১৫ দিনে করোনার পৃথক ৩টি ইউনিটে মোট ৪০২ জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসেন।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও