কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

চট্টগ্রাম সিটি ও চারটি সংসদীয় আসনের ভোট বিষয়ে সিদ্ধান্ত কাল

বাংলা ট্রিবিউন প্রকাশিত: ৩১ মে ২০২০, ২০:৪৬

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দিনক্ষণ নির্ধারণ এবং দেশের চারটি সংসদীয় আসনের শূন্য আসনের উপনির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এজন্য আগামীকাল সোমবার (১ জুন) বৈঠকে বসবেন নির্বাচন কমিশনাররা। এদিন বিকাল চারটায় কমিশনের ৬৩তম এ সভা অনুষ্ঠিত হবে।

দেশের ৪টি সংসদীয় আসন শূন্য থাকায় উপনির্বাচন অনুষ্ঠানে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। বিষয়টি মাথায় রেখে সরকারি অফিস আদালত খুলে দেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে জরুরি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে করোনাকালের মধ্যে এ কমিশন সভা হতে যাচ্ছে।

ইসি উপসচিব মো. শাহ আলম স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

নোটিশে জানানো হয়েছে, এ বৈঠকে ৬টি আলোচ্যসূচি রয়েছে। এগুলো হলো প্রতিনিধিত্ব আইন, ২০১০ এর খসড়া বিল অনুমোদন, রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন আইন প্রণয়ন, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রণীত আইন বাংলা প্রণয়ন, জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর স্থগিত নির্বাচনের ওপর আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ, সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণ আইন ২০১০ এবং বিবিধ।

সংসদ সদস্যদের মৃত্যুজনিত কারণে বগুড়া-১, যশোর-৬, পাবনা-৪ ও ঢাকা-৫ সংসদীয় আসন বর্তমানে শূন্য রয়েছে। এরমধ্যে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনের উপনির্বাচনের তফসিল হলেও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ কারণে শেষ মুহূর্তে তা স্থগিত হয়। ওই কারণে স্থগিত হয় চট্টগ্রাম সিটির ভোট। ২৯ মার্চ এর তিনটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল।

এরইমধ্যে পাবনা ৪ ও ঢাকা-৫ আসনের সদস্যদের মৃত্যু হওয়ায় এ দুটি আসনও শূন্য হয়েছে।

সংসদীয় আসন শূন্য হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচন করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে বগুড়া-১ ও যশোর-৬ সংসদীয় আসনে সেটা মানা সম্ভব হয়নি। তবে সংবিধানে এও বলা আছে ‘দৈব-দুর্বিপাকের কারণে’ উপনির্বাচন করার জন্য আরও ৯০ দিন পাওয়া যাবে। নির্বাচন কমিশন এখন সেই সুযোগ নিচ্ছে। এরপরও করোনার কারণে নির্বাচন করতে না পারলে রাষ্ট্রপতির কাছে যাবে ইসি।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও