কুইক লিঙ্ক : মুজিব বর্ষ | করোনা ম্যাপ | করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব

কোয়ারেন্টিনে ঘরে মায়ের স্মৃতিতে কাতর জাহ্নবী

প্রথম আলো প্রকাশিত: ০১ এপ্রিল ২০২০, ১৭:৪৭

৯ দিন হলো জাহ্নবী কাপুরের গৃহবন্দী দশা। আর এই সাত দিনে তিনি নিজেকে নানান ভাবে আবিষ্কার করেছেন। এমনকি মায়ের সেই চেনা গন্ধও খুঁজে পেয়েছেন জাহ্নবী এই সেলফ আইসোলেশনে। বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাসের প্রভাব ক্রমে বেড়েই চলেছে। ভারতেও এই ভাইরাসের দাপট তুঙ্গে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি করোনার সংক্রমণ রুখতে সারা দেশে ২১ দিনের লকডাউন জারি করেছেন। তাই সাধারণ মানুষের পাশাপাশি বলিউড তারকারাও নিজেদের গৃহবন্দী করে রেখেছেন। অবশ্য লকডাউন শুরুর আগেই শুটিং বন্ধ থাকায় সচেতনতায় ঘরে ঢুকে গিয়েছিলেন তাঁরা। ২৩ বছর বয়সী জাহ্নবী কোয়ারেন্টিনে নিজের মধ্যে জানা–অজানা কিছু আবিষ্কার করেছেন। শ্রীদেবীকন্যা জাহ্নবীর মতে, এই গৃহবন্দী দশার মধ্যেই তিনি সবচেয়ে স্বাধীনতা অনুভব করছেন। নিজের ইচ্ছেমতো সময় কাটাচ্ছেন জাহ্নবী। নিজের মন যা চায় তা–ই করছেন এই বিটাউন তরুণী। এখন তিনি বাঁধনহারা। কোনো নিয়ম, কোনো উৎকণ্ঠার মধ্যে নেই জাহ্নবী। তবে এই লকডাউনের সময় তিনি সবচেয়ে মূল্যবান এক জিনিস খুঁজে পেয়েছেন। জাহ্নবী বলেন, ‘মায়ের সাজঘরে পা রেখে আমি অবাক হয়ে যাই। এত দিন পর আজও এই ঘরের আনাচকানাচে মায়ের সেই চেনা গন্ধ। মাকে আমি অনুভব করেছি।’ নিজের মধ্যে লুকিয়ে থাকা এক অজানা জাহ্নবীকে আবিষ্কারের প্রসঙ্গে শ্রীদেবীকন্যা বলেন, ‘আমি আমার শিল্পীসত্তাকে আবিষ্কার করেছি। আমার মনে হয়েছে, আমি ভালো ছবি আঁকতে পারি। আর আমি যে লেখালেখি ভালোবাসি, তা এই কোয়ারেন্টিনে থাকতে গিয়েই টের পেলাম।’জাহ্নবী বলেন, ‘এই কয় দিনে আমি অনুভব করেছি, বোন হিসেবে খুশি দুর্দান্ত। আর আমার বন্ধুরা এই দুনিয়ার সবচেয়ে মজাদার মানুষ। কারণ, বন্ধুদের তো আগে কখনো এভাবে সময় দেওয়া হয়নি।’ জাহ্নবী মনে করেন, সুস্থ থাকার জন্য গান শোনাটা দারুণ কাজের। আর সংগীতই পারে মানুষকে সব দুশ্চিন্তা থেকে দূরে রাখতে। তিনি জানান, মানুষের মন একটা গ্লোবের মতো।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

প্রতিদিন ৩৫০০+ সংবাদ পড়ুন প্রিয়-তে

এই সম্পর্কিত

আরও