ব্রিটিশ সমর্থক গোষ্ঠীদের (বার্মি আর্মি) একাংশ। ছবি: সংগৃহীত

ওয়ার্নার-স্মিথকে বিরক্ত করতে বার্মি আর্মির অদ্ভুত আয়োজন

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২২ মে ২০১৯, ২১:২৪
আপডেট: ২২ মে ২০১৯, ২১:২৪

(প্রিয়.কম) ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট দ্বৈরথ বেশ পুরনো। যেকোনো ইস্যুতে একে অপরকে খোঁচা দিতে পিছপা হয় না কেউ। তারই ধারাবাহিকতা বিশ্বকাপ শুরুর কয়েক দিন আগেই ইংলিশ সমর্থকদের আক্রমণের শিকার হন ডেভিড ওয়ার্নার-মিচেল স্টার্ক ও নাথান লায়ন। স্পষ্টভাবে বললে, অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলই তাদের লক্ষ্যবস্তু!

এখানেই শেষ নয়; আসন্ন ওয়ানডে বিশ্বকাপে ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভেন স্মিথকে লজ্জা দিতে ইতোমধ্যেই ৯টি গান প্রস্তুত করছে ইংল্যান্ডের বার্মি আর্মিরা। লন্ডনের হাইকমিশনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ইংল্যান্ডের কিংবদন্তি অলরাউন্ডার স্যার ইয়ান বোথাম। তিনি মনে করেন, ইংলিশ সমর্থকদের সামাল দেওয়া স্মিথ-ওয়ার্নারদের জন্য বেশ কঠিন হয়ে পড়বে।

এ প্রসঙ্গে ইয়ান বোথাম বলেন, ‘আমার জানা মতে, বার্মি আর্মিরা এখন পর্যন্ত ৮-৯টি গান প্রস্তুত করেছে। মনে হয়, ওয়ার্নার-স্মিথও তাদের এসব গানের মধ্যে আছে। আমি নিশ্চিত নই, স্মিথ-ওয়ার্নাররা এসব কীভাবে সামলে নেবে। সব মিলিয়ে মজার একটি ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে।’

বার্মি-আর্মিদের তোপের মুখে পড়া অজি ক্রিকেটারদের জন্য নতুন কোনো ঘটনা নয়। এর আগে বল টেম্পারিংয়ের ঘটনায় নিষিদ্ধ হওয়ার পরপরই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে গান প্রকাশ করে ইংলিশ সমর্থকরা। সেই গানে তারা ডেভিড ওয়ার্নারের স্ত্রী ক্যানডিস ওয়ার্নারকেও অপমান করে। শুধু তা-ই নয়, ওয়ার্নারের স্ত্রীর পুরনো প্রেমিক বিল উইলিয়ামসের নাম তুলেও ঠাট্টা-মশকরা করতে ছাড়েনি বার্মি-আর্মিরা।

সর্বশেষ অস্ট্রেলিয়া তাদের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন করার পরও বার্মি আর্মিদের তোপের মুখে পড়েছিলেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা। জার্সি উন্মোচনের পরই নিজেদের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে কয়েকটি ছবি পোস্ট করে ইংলিশ সমর্থকরা। এর একটি ছবিতে দেখা যায়, অস্ট্রেলিয়ার হলুদ জার্সি পরে দাঁড়িয়ে আছেন ওয়ার্নার। কিন্তু ছবিটি বিকৃত করে ওয়ার্নারের জার্সিতে অস্ট্রেলিয়ার জায়গায় ‘প্রতারক’ লিখে দেয় ব্রিটিশ সমর্থক গোষ্ঠী।

শুধু ওয়ার্নার নয়, বার্মি আর্মির আক্রমণের শিকার হন মিচেল স্টার্ক ও নাথন লায়নও। এই দুই বোলারের ছবিতে হাতে বলের জায়গায় ফটোশপ করে ঢোকানো হয়েছে স্যান্ড পেপারের রোল (শিরিষ কাগজ)। এই স্যান্ড পেপার দিয়েই বল বিকৃত করার অভিযোগ উঠেছিল ওয়ার্নার-স্মিথ ও ব্যানক্রফ্টের বিরুদ্ধে।

প্রিয় খেলা/আজাদ চৌধুরী