(প্রিয়.কম) রোহিঙ্গা সঙ্কটের সময় বিএনপি চেয়ারপারসন ‘খালেদা জিয়া কোথায়’ এমন প্রশ্ন তুলে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘খালেদা জিয়া নিখোঁজ’।  

১৬ সেপ্টেম্বর শনিবার রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে এক প্রকাশনা অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘তুরস্কের ফার্স্ট লেডি এসেছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসেছেন, ইন্দোনিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসেছে। কিন্তু কোথায় খালেদা জিয়া? আপনারা বলেন প্রধানমন্ত্রীর বোধদয় হয়েছে? প্রধানমন্ত্রী কি না করেছেন? মানুষ প্রধানমন্ত্রীকে সেখানে পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়েছে কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া নিখোঁজ।’   

তিনি বলেন, ‘আমরা ১৬ কোটি মানুষের দেশ। অতি ঘনবসতিপূর্ণ। কিন্তু আমাদের হৃদয় আছে। আমাদের মন আছে। এসব দেখে আমাদের মনে একাত্তরের স্মৃতি ভেসে উঠে। কীভাবে আমাদের মা বোন সেদিন ভারতে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিল। সুতরাং আমাদের অভিজ্ঞতা আছে। সে অভিজ্ঞতার আলোকেই মানবিক দিক বিবেচনা করে এদেরকে আমরা আজকের বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়েছি। আমরা মনে করি অনতি বিলম্বে সেখানে গণহত্যা বন্ধ করা উচিত।’

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘লন্ডনের একটি নাম করা টেলিভিশন ‘মাদার অব হিউমেনিটি’ খেতাবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভূষিত করে নিউজ প্রচার করেছে। কিন্তু বাংলাদেশে একটি দল আছে যারা শেখ হাসিনাকে অং সান সূচির সঙ্গে তুলনা করে বক্তব্য দাঁড় করিয়েছে। চিন্তা করে দেখেন ওরা কত নোংরা। এদের চিন্তা চেতনা কত নিচু।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের কিছু লোক আছে যাদের দল নাই, দলহীন তারা সুযোগ পেলে সরকারে বিপক্ষে এবং বিএনপির পক্ষে দাঁড়ায়। তারা বলে আমাদের কুটনৈতিক তৎপরতা তেমন না।’

কূটনৈতিক তৎপরতা না থাকলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন মিয়ানমারের নিন্দা করলো কিভাবে? ইউরোপিয় ইউনিয়ন বলেছে, তারা (মিয়ানমার) একদিকে বাণিজ্যিক সুবিধা নিবে অন্যদিকে গণহত্যা করবে তা হতে পারে না। এই মিয়ানমারের ঘটনাকে আন্তর্জাতিক বিশ্ব এখন গণহত্যা হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।’

সংস্কৃতি সচিব ইব্রাহিম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও অর্থপ্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বক্তব্য রাখেন।

 

প্রিয় সংবাদ/সজিব