রাঙামাটিতে বিএনপি নেতাকে গুলি করে হত্যা

মানবজমিন প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৩ ১০:৫৩:০০

রাঙামাটিতে বিএনপি নেতা ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান দ্বীপময় তালুকদারকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তার লাশ উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে জেলার রাজস্থলীর তাইতং পাড়াস্থ জিরো মাইল এলাকা থেকে অস্ত্রের মুখে তাকে অপহরণ করে সন্ত্রাসীরা। নিহত দ্বীপময় তালুকদার রাঙামাটি জেলা বিএনপির সহসভাপতি ছিলেন। এ হত্যাকা-ের ঘটনায় জেলা বিএনপি শোক জানিয়েছে। পারিবারিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দ্বীপময় রাজস্থলীর ৩৩৩নং ঘিলাছড়ি মৌজার হেডম্যান ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান। তার মাথায় গুলি করাসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। রাজস্থলী থানার অফিসার ইনচার্জ মফজল আহাম্মেদ জানিয়েছেন, সকাল ৭টার সময় একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা নিরাপত্তা বাহিনীকে খবর দেয়। এ সময় আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হেডম্যান দ্বীপময় তালুকদারের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেছি। তিনি জানান, আমরা নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠাবো। এর আগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে দ্বীপময়কে পাওয়া যাচ্ছে না মর্মে রাজস্থলী থানা পুলিশকে বলে মৌখিকভাবে জানিয়েছিলো।মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার সময় রাজস্থলীর তাইতং পাড়াস্থ জিরো মাইল এলাকা থেকে অস্ত্রের মুখে তাকে অপহরণ করে নিয়ে গিয়েছিলো সন্ত্রাসীরা। সকালে নিহতের লাশ উদ্ধারের পর সকাল সাড়ে ৮টার সময় রাজস্থলী বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে এই নির্মম হত্যার সঙ্গে জড়িত পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য রাজস্থলী বাজার বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা।ঘটনার সঙ্গে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি জেএসএস এর অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা জড়িত বলে পারিবারিক একটি সূত্র প্রতিবেদককে জানিয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি জানান, আমরা অপহরণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরপরই রাতে জেএসএস এর শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। কিন্তু তারা বিষয়টি অস্বীকার করেছে এবং আমাদেরকে ধৈর্য্য ধরার পরামর্শ দিয়েছিলো।মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার সময় তাকে অপহরণ করা হয়েছে বলে স্থানীয় কারবারী শান্ত তঞ্চঙ্গ্যা ও রাজস্থলী থানার ওসি তদন্ত ওমর ফারুক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দ্বীপময় তালুকদার বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৬ ইসিবি’র মাধ্যমে রাজস্থলীর তাইতং পাড়া এলাকায় সড়কের কাজ তদারকির দায়িত্ব শেষে সঙ্গে আরও তিনজনকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে জিরো মাইল এলাকায় পৌঁছলে একদল অস্ত্রধারী পাহাড়ি সন্ত্রাসী তাদের গতিরোধ করে হেডম্যানের পরিচয় নিশ্চিত হয়ে অস্ত্রের মুখে তাকে তুলে গভীর অরণ্যের দিকে নিয়ে যায়। এ সময় তিন রাউন্ড গুলির শব্দও শোনা গেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কারবারী।

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

স্পন্সরড কনটেন্ট

আরও