‘নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে সরকার কী করছে, জানতে চেয়েছে তুরস্ক’

(প্রিয়.কম) আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু-অবাধ ও নিরপেক্ষ করতে সরকার কী ভূমিকা পালন করছে, তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী তা জানতে চেয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

১৯ ডিসেম্বর বুধবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশ সফররত তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিমের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন দলটির মহাসচিব। 

মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতির সামগ্রিক পরিস্থিতি, সামনে রাজনীতির কী অবস্থা দাঁড়াবে, আসন্ন নির্বাচনে বিএনপির ভূমিকা কী থাকবে, একটি সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সরকার কী ভূমিকা পালন করছে, দেশ কেমন চলছে- এসব বিষয় জানতে চেয়েছে তুরস্ক।

তিনি জানান, তুরস্কের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ৪৫ মিনিটের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমরা আমাদের বক্তব্য দিয়েছি, তারা তাদের মতামত দিয়েছেন। বৈঠকে পারস্পারিক সম্পর্ক নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

ফখরুল বলেন, ‘তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে এসেছেন মূলত রোহিঙ্গা সমস্যা সরেজমিনে দেখার জন্য এবং এই রোহিঙ্গা মুসলমানদের কীভাবে নিরাপত্তা সহকারে দেশে ফেরত পাঠানো যায়, সে বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কথা বলতে। তুরস্কের জনগণ রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে অত্যন্ত সহানুভূতিশীল। রোহিঙ্গারা যেন তাদের দেশে ফিরে যেতে পারে, সে জন্য তুরস্ক প্রথম থেকে কাজ করছে। এ কারণে তুরস্কের ফার্স্ট লেডি বাংলাদেশে এসেছিলেন এবং তারপর বিষয়টি গোটা বিশ্বে নাড়া দিয়েছে।’

জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ওআইসি’র পাল্টা-পাল্টি অবস্থানে বিষয়ে তুরস্কের মতামত কী- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তুরস্ক সম্পূর্ণভাবে ফিলিস্তিনের পক্ষে রয়েছে। সে অনুসারে কাজ করছে বলে জানিয়েছে তুরস্ক।’এর আগে ১৯ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটে 

খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বৈঠকে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খানআমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা সাবিহ উদ্দিন আহমেদ, মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক উপদেষ্টা এনামুল হক চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

প্রিয় সংবাদ/শান্ত