রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডিপথেরিয়া মোকাবেলায় আসছে ব্রিটিশ মেডিকেল টিম

(প্রিয়.কম) মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযানে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরগুলোতে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া ডিপথেরিয়ার হুমকির মুখে থাকা হাজার হাজার রোহিঙ্গা শিশুর জীবন রক্ষায় বাংলাদেশে আসছে ব্রিটিশ ইমারজেন্সি মেডিকেল টিম। ২৮ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ঢাকার ব্রিটিশ হাইকমিশনের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরে ডিপথেরিয়া মোকাবেলায় বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তার লক্ষ্যে চিকিৎসক, নার্স ও অগ্নি-নির্বাপন কর্মীসহ ৪০ সদস্যের একটি ব্রিটিশ ইমারজেন্সি মেডিকেল টিম (ইএমটি) শিগগিরই বাংলাদেশে আসছে। এই মেডিকেল টিমটি কক্সবাজারে স্বাস্থ্য ক্যাম্প স্থাপনের মাধ্যমে ছয় সপ্তাহ স্বাস্থ্য সেবা দিবে। এতে ন্যাশনাল হেল্থ সার্ভিসের ডাক্টার, নার্স চিকিৎসাকর্মী ও এপিডেমিওলজিস্টসহ ৩৬ জন স্বাস্থ্যকর্মী মরণঘাতী ডিপথেরিয়া থেকে জীবন রক্ষায় চিকিৎসা সেবা প্রদান করবে।

পাশাপাশি, পাঁচ সদস্যের একটি অগ্নিনির্বাপক দলও আসছে যারা রোহিঙ্গা চিকিৎসায় আগত মেডিকেল টিমকে সহায়তায় প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণে পরামর্শ দেবেন।

ডিপথেরিয়া একটি মরণঘাতী রোগ যা বায়ুর মাধ্যেমে ছড়ায়। শিশুরাই প্রধানত এ রোগের শিকার হয়। কক্সবাজারের বিভিন্ন রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরে ইতোমধ্যে ২ হাজার শিশু এ রোগে আক্রান্ত হয়েছে, মৃত্যু হয়েছে ২৬ শিশুর। এ ছাড়া গড়ে ১৬০ জনের মতো নতুন রোগী প্রতিদিন এ রোগে আকান্ত হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধন অভিযান শুরু হওয়ার পর প্রাণ বাঁচাতে প্রায় ৬ লাখ ৭২ হাজার মানুষ পালিয়ে এসে বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলার টেকনাফ ও উখিয়ার শরণার্থী শিবিরগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে; যাদের ৯০ শতাংশই নারী-শিশু ও বৃদ্ধ।

ইউনিসেফের হিসাব অনুযায়ী, শরণার্থী শিবিরে বর্তমানে ৪ লাখ ৫০ রোহিঙ্গা শিশু রয়েছে; যার মধ্যে ২ লাখ ৭০ হাজারই নতুন। এসব শিশুর মধ্যে আবার অভিভাবকহীন ৩৬ হাজার ৩৭৩ শিশুও রয়েছে। বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে অন্তত ৫০ হাজার অন্তঃসত্ত্বা নারী রয়েছেন। পালিয়ে আসা শিশু শরণার্থীদের বাইরেও প্রতিদিন যোগ হচ্ছে প্রায় ১০০ নবজাতক। 

প্রিয় সংবাদ/কামরুল