সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল। সংগৃহীত: ছবি

সোহেল তাজ ও ‘হটলাইন কমান্ডো’

মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৮ জুলাই ২০১৯, ২০:৫০
আপডেট: ১৮ জুলাই ২০১৯, ২০:৫০

(প্রিয়.কম) রাজনীতিতে পরিচিত মুখ তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। বাবা দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ছিলেন সোহেল তাজ। অবশ্য মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তিনি পদত্যাগ করেন। এরপর রাজনীতিতে আর সক্রিয় হননি। তবে দীর্ঘদিন রাজনীতির সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত না থেকেও ঘুরে ফিরে রাজনীতির আলোচনায় উঠে আসা নামের মধ্যে তার নামও রয়েছে।

২০১৬ সালে ২৮ মার্চ আওয়ামী লীগের ২০তম ত্রিবার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। তখন কাউন্সিলে তার উপস্থিতি ফের আওয়ামী লীগে ফিরে আসার পূর্বাভাস হিসেবে ভেবে নেন অনেকে। যদিও শেষ পর্যন্ত দলে ফেরা হয়নি সোহেল তাজের।

চলতি বছরের ৩ এপ্রিল সোহেল তাজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। যেখান দেখানো হয়, সোহেল তাজ মানুষের দরজায় গিয়ে কড়া নাড়ছেন। এতে করে তিনি ফের নতুন করে আলোচনার জন্ম দেন। সেই ধারাবাহিকতায় ১৮ জুলাই, বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করে ঘোষণা দেন- ‘হটলাইন কমান্ডো’ দল নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে নানা শ্রেণি–পেশার মানুষের দরজায় কড়া নাড়বেন তিনি।

সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরা এবং সুস্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিতে মানুষকে সচেতন করতে এই টেলিভিশন শো নিয়ে আসছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। লাইফস্টাইল–বিষয়ক এই রিয়্যালিটি শোর নামই হলো ‘হটলাইন কমান্ডো’। এই রিয়্যালিটি শোটি মাসে দুদিন করে, মঙ্গলবার রাত ৮টায় হবে। ১২ পর্বের শোটি উপস্থাপনা করবেন সোহেল তাজ।

সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি সম্পর্কে ধারণা দেওয়ার জন্য এ সময় একটা ডেমো দেখান তিনি। তাতে দেখা যায়, সমস্যায় ভুক্তভোগীদের বাড়িতে গিয়ে হটলাইন কমান্ডো টিম নিয়ে সোহেল তাজ সরাসরি হাজির হচ্ছেন। সমস্যা শোনার পর তিনি সেটার সমাধান দিচ্ছেন।

তবে ‘হটলাইন কমান্ডো’ অনুষ্ঠানটি ভবিষ্যতে কোনো রাজনৈতিক সংগঠন হবে না জানিয়ে সোহেল তাজ বলেন, ‘রাজনীতি কি সাইনবোর্ড নিয়ে করতে হবে নাকি।’

হটলাইন কমান্ডো সম্পর্কে যা বললেন সোহেল তাজ

শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি সমাজের সুস্থতাও দরকার উল্লেখ করে সোহেল তাজ বলেন, ‘সুস্থ থাকা মানে শুধু স্বাস্থ্যই না; সমাজের সুস্থতাও দরকার। গণমাধ্যমে এখন ধর্ষণের খবর পাওয়া যাচ্ছে, ইভ টিজিং রয়েছে, মাদক—এগুলো সমাজের ব্যাধি। সমাজের সব ব্যাধিকে আমাদের লাল কার্ড দেখাতে হবে। সমাজের সমস্যাগুলোকে সমাধান করা না গেলে সোনার বাংলা গড়া যাবে না। সোনার বাংলা কেউ গড়ে দিতে পারে না। সবার নিজেদের উদ্যোগ থাকতে হয়।’

সংবাদ সম্মেলনে সোহেল তাজ তার রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে নানা প্রশ্নের উত্তর দেন। রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার আবারও কোনো সম্ভাবনা আছে কি না? এ প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, ‘রাজনীতিতে আমি নাই। কিন্তু রাজনীতি পরিবারের সন্তান। রাজনীতি আমার রক্তে, দেশ আমার রক্তে। এটার বাইরে যাওয়ার সুযোগ নাই। এই মুহূর্তে সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করার সুযোগ নাই। এই প্রোগ্রামটা আমার সমস্ত সময় নিয়ে নেবে। মানুষের কাছে আমি ঋণী। মানুষের ভালোবাসা পরিশোধ করতে যাচ্ছি এই প্রোগ্রামটার (হটলাইন কমান্ডো) মধ্য দিয়ে।’

আওয়ামী লীগের সঙ্গে সোহেল তাজের সম্পর্ক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ যদি সোহেল তাজকে কোনো রাজনৈতিক দায়িত্ব দেন তাহলে তিনি কি সে দায়িত্ব গ্রহণ করবেন, এই ব্যাপারে জানতে চাইলে সোহেল তাজ জানান, তিনি ও তার পরিবার দেশের ও আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে পাশে ছিল এবং থাকবে। আজকের সুদিনে থাকবেন কি না প্রশ্নের উত্তরে বলেন, ‘সুদিনে আমি অন্যভাবে সহায়তা করছি।’

এক প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, ‘একটা সমাজ যদি প্রস্তুত না থাকে, আপনি কী রাজনীতি করবেন। রাজনীতি কাকে নিয়ে করবেন? সমাজকে গড়তে পারলে, মানুষকে তৈরি করতে পারলে সবকিছুরই সমাধান চলে আসে। হয়তো এটাই আমার পন্থা রাজনীতি করার।’

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

আরো পড়ুন