প্রতীকী ছবি

ফাইবার-এনটিটিএন সংযোগে ভ্যাটমুক্ত চায় আইএসপিএবি

রাকিবুল হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৬ জুন ২০১৯, ১৮:৫৩
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৯, ১৮:৫৩

(প্রিয়.কম) ফাইবার অপটিক ক্যাবলের ওপর পাঁচ শতাংশ রেগুলেটরি ডিউটি মওকুফ এবং ন্যাশনওয়াইড টেলিকমিউনিকেশন ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) সংযোগের ওপর থেকে ভ্যাট সম্পূর্ণ প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছে আইএসপিএবি।

সম্প্রতি জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট পেশ করেন। বাজেট পেশ করার পর ১৬ জুন, রবিবার আইএসপিএবিসহ আইটি অ্যাসোসিয়েশনগুলো ঘোষিত বাজেট প্রতিক্রিয়া প্রকাশের জন্য সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

সেখানে আইএসপিএবির পক্ষ থেকে এসব দাবি তুলে ধরা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত সংগঠনটির সভাপতি আমিনুল হাকিম জানান, বর্তমানে দেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের পেনিট্রেশন মাত্র ৫ শতাংশ, যা উন্নত বিশ্বের তুলনায় নিতান্তই কম।

তিনি বলেন, ‘এটি সুবিদিত যে, প্রতি এক হাজার ব্রডব্যান্ড সংযোগের মাধ্যমে প্রায় ১০ জন কর্মহীন মানুষের কর্মসংস্থান হয়। এ ছাড়াও বিশ্বব্যাংকের তথ্যানুসারে, প্রতি ১০% ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পেনিট্রেশনের মাধ্যমে ১.৩৮% জিডিপির প্রবৃদ্ধি ঘটে। এমন একটি অবস্থায় ফাইবার অপটিক ক্যাবলের উপর ৫% রেগুলেটরি ডিউটি (RD) আরোপ তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বিকাশ ও প্রসারে এবং দ্রুতগতির ইন্টারনেট জনমানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে একটি বড় প্রতিবন্ধক হিসেবে কাজ করবে, যার প্রভাব সরকারি মেগা প্রজেক্টগুলোতেও পড়বে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।’

‘উপরোক্ত পরিস্থিতি বিবেচনায় ফাইবার অপটিক ক্যাবলের উপর ৫% রেগুলেটরি ডিউটি (RD) আরোপ করার বিষয়টি মওকুফ করে পূর্বের ন্যায় ০% করার জন্য আইএসপিএবি জোর দাবি জানাচ্ছে।’, যোগ করেন তিনি।

এনটিটিএন'র বিষয়ে তিনি বলেন, ‘শহরের বাসিন্দারা যেই মূল্যে ইন্টারনেট সেবা গ্রহণ করতে পারেন, উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন পর্যায়ের বাসিন্দারা সেই মূল্যে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা গ্রহণ করতে পারছেন না, বরং একই গতির ইন্টারনেট গ্রহণের জন্য তাদেরকে উচ্চ মূল্য পরিশোধ করতে হচ্ছে। এই বৈষম্যের অন্যতম কারণ হলো অতিরিক্ত ট্রান্সমিশন মূল্য।

এমতাবস্থায়, এনটিটিএন সংযোগের ওপর হ্রাসকৃত ৫% ভ্যাট মওকুফ করে ০% (শূন্য শতাংশ) ভ্যাট নির্ধারণ করা হলে এই অতি উচ্চ মূল্যের ট্রান্সমিশনের খরচ অনেকাংশেই কমে আসবে বলে আইএসপিএবি মনে করে, যার সুফল দেশের উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন পর্যায়ের বাসিন্দারা ভোগ করবেন এবং শহরের ন্যায় প্রায় একই মূল্যে ইন্টারনেট সেবা পাবেন।

প্রিয় প্রযুক্তি/কামরুল

আরো পড়ুন