মিমি চক্রবর্তী। ছবি: সংগৃহীত

গ্লাভসের পর এবার তোয়ালে বিতর্কে মিমি

শামীমা সীমা
সহ সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ২২:২৪
আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ২২:২৪

(প্রিয়.কম) যাদবপুরের তৃণমূল প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী। এর আগে পশ্চিম বাংলার এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী ভোটের প্রচারে হাতে গ্লাভস পরে মানুষের সঙ্গে হাত মেলানো নিয়ে সমালোচিত হয়েছিলেন। পরে জানা যায়, হাত মচকে যাওয়ার কারণে গ্লাভস পরে জনগণের সঙ্গে হাত মেলান তিনি। তবে এবার তিনি জড়ালেন তোয়ালে বিতর্কে। ভোটের প্রচারের জন্য তোয়ালে বিছানো রিকশায় বসার কারণে সমালোচিত হতে হলো তাকে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মিমিকে নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক ট্রলিং। সোমবার নিজের শহর জলপাইগুড়িতে তৃণমূল প্রার্থী বিজয়চন্দ্র বর্মণের হয়ে প্রচারে যান তিনি। সেখানে পাণ্ডাপাড়ার বাড়ি থেকে রিকশায় চেপে মন্দিরে পুজা দিতে যান। রিকশায় তোয়ালে পেতে বসা মিমির সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তে সময় লাগেনি। এরপর শুরু হয় সমালোচনা। রিকশার সিটে তোয়ালে বিছানো দেখে রেগে যান নেটিজেনদের একাংশ। নেটিজেনদের একাংশের প্রশ্ন, সাধারণ মানুষের সঙ্গে একাত্ম হতে এত আপত্তি যার, তিনি দেশসেবা করবেন কীভাবে?

ফেসবুকে সৈকত সরকার নামের এক ব্যক্তি লেখেন, ‘এই ধরনের আচার-আচরণ ক্রমশ অসহনীয় হয়ে উঠছে। তোয়ালে ছাড়া রিকশায় উঠতে পারেন না তিনি। দস্তানা না পরে সাধারণ মানুষের সঙ্গে হাত মেলাতে পারেন না। সেই সঙ্গে সারাক্ষণ চেহারায় ঔদ্ধত্য। মানছি সুন্দরী তিনি, কিন্তু এটা কোনো সৌন্দর্য প্রতিযোগিতা নয়। শুধুমাত্র হুমকি দিয়ে আর চেঁচিয়ে কাজ হবে না। এই ধরনের তারকা রাজনীতিতে আসায় দেশ এবং রাজ্যের ক্ষতি হচ্ছে।’

মিমি চক্রবর্তী। ছবি: সংগৃহীত

সেই ব্যক্তি আরও লেখেন, ‘প্রচুর পরিশ্রমী লোকজন রয়েছেন যারা দলের জন্য জীবন দিয়ে দেন। বিপদে- আপদে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ান। টলিউড সুন্দরীদের টিকিট না দিয়ে বরং তাদের টিকিট দেওয়া উচিত।’

অরিন্দম সরকার নামের আরেক ব্যক্তির কথায়, ‘হাতে দস্তানা পরে পথসভা করতে যান মিমি চক্রবর্তী। রিকশার সিটে তোয়ালে পেতে বসেন। তিনি নাকি সাংসদ হবেন, দেশসেবা করবেন।’

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তা নিয়ে নিজের পক্ষে সাফাই দেননি মিমি। সোমবার পাণ্ডাপাড়ার স্থানীয় এক রিকশাওয়ালার রিকশাতেই উঠেছিলেন মিমি, যাকে ছোটবেলায় মামা বলে ডাকতেন তিনি। সেই রিকশার সিটে তোয়ালে পাতা ছিল। রিকশায় ওঠার সময় তোয়ালে লাগবে না বলে জানান মিমি। তবে আশপাশের লোকজন জোর করায় শেষে তোয়ালে বিছানো আসনেই বসে পড়েন মিমি।

এদিকে আজ পান্ডাপাড়া কালিবাড়ি নিম্ন বুনিয়াদি প্রাইমারি বিদ্যালয়ের বুথে ভোট দিলেন কলকাতার যাদবপুর কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী। দুপুরে পরে বুথ তখন ফাঁকা ছিল। পরিবারের অন্যদের সঙ্গে এসে ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে পড়লেন মিমি। ভোট দিয়ে বেরিয়ে আঙুলে কালি দেখিয়ে ক্যামেরার সামনে হাসিমুখে পোজ দেন, সেলফি তোলেন স্থানীয় বাসিন্দা ও শিশুদের সঙ্গেও।

প্রিয় বিনোদন/আজাদ চৌধুরী