ফেরদৌস আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত

বিতর্কের জেরে ‘অনিশ্চিত’ ফেরদৌসের টালিগঞ্জ যাত্রা

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:৪৮
আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:৪৮

(প্রিয়.কম) কলকাতায় লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নিয়ে বিতর্কের মুখে পড়ে ভিসা বাতিল হওয়ার পর দেশে ফিরেছেন অভিনেতা ফেরদৌস। এরপর তাকে কালো তালিকাভুক্ত করে দেশটি। শোনা যাচ্ছে, এখন কলকাতায় তার ‘দত্তা’ ছবির শুটিং নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

অনেক দিন পর কলকাতার ছবিতে অভিনয় করার কথা ছিল ফেরদৌসের। এই ছবিতেই ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সঙ্গে কয়েক বছর পর অভিনয় করতেন তিনি। এখন ফেরদৌসের ভিসা বাতিলের পর শুটিংয়ের কাজ আপাতত স্থগিত। এ নিয়ে এখনো স্পষ্টভাবে কেউ কিছু জানাননি।

তার জায়গায় অন্য কোনো অভিনেতাকে নেওয়া হবে, নাকি শুটিং পিছিয়ে দেওয়া হবে—তা নিয়ে অবশ্য এখনই কিছু বলতে নারাজ নির্মাতারা।

১২ এপ্রিল কলকাতায় যান ফেরদৌস আহমেদ। কিন্তু কলকাতায় এসে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে প্রচারে বের হন তিনি। বিতর্কের সূত্রপাত এখান থেকেই। অভিনেতার বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দায়ের করে বিজেপি। এরপর ভিসা বাতিল করে ভারত সরকার।

বিষয়টিকে কেন্দ্র করে ১৭ এপ্রিল, বুধবার সন্ধ্যায় ফেরদৌস আহমেদ গণমাধ্যমে একটি বিবৃতি পাঠিয়েছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, ভারতে গিয়ে নির্বাচনি প্রচারণায় অংশগ্রহণ করাটা তার ভুল ছিল। আর এই অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য তিনি ক্ষমাও চেয়েছেন।

বর্তমানে ভারতে চলছে ১৭তম লোকসভা নির্বাচন। প্রথম দফায় ১৮টি রাজ্যের ৯১টি আসনে ১১ এপ্রিল ভোট হয়ে গেছে। উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে তৃণমূল প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়ালের সমর্থনে প্রচারণা করছিলেন বাংলাদেশের এ নায়ক।

গত রবিবার ফেরদৌস রায়গঞ্জ আসনের করণ দিঘি থেকে ইসলামপুর পর্যন্ত তৃণমূলের প্রচার মিছিলে অংশ নেন। এলাকাটি বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে। নির্বাচনি ওই প্রচারে ফেরদৌসের সঙ্গে ছিলেন ভারতীয় বাংলা সিনেমার দুই তারকা অঙ্কুশ হাজরা ও পায়েল।

১১ এপ্রিল ভারতে লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম দফার ভোট রয়েছে যথাক্রমে ১৮ এপ্রিল, ২৩ এপ্রিল, ২৯ এপ্রিল, ৬ মে, ১২ মে ও ১৯ মে। এরপর ২৩ মে ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

প্রিয় বিনোদন/আজাদ চৌধুরী

আরো পড়ুন