প্রতীকী ছবিটি ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত

নিজের মাঝে নিজেই বন্দী?

রুমানা বৈশাখী
বিভাগীয় প্রধান (প্রিয় লাইফ)
প্রকাশিত: ১০ এপ্রিল ২০১৯, ২২:৩০
আপডেট: ১০ এপ্রিল ২০১৯, ২২:৩০

(প্রিয়.কম) কথাটি শুনতে যতই অন্য রকম লাগুক না কেন, ব্যাপারটি কিন্তু সত্যি। অনেক ক্ষেত্রেই আমরা নিজের মাঝে বন্দী হয়ে পড়ি, নিজের আবেগ ও জমানো কথাগুলো মনের মাঝেই চেপে নিয়ে একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মতো হয়ে পড়ি। বিশেষ করে ইন্ট্রোভার্ট মানুষেরা এমন সমস্যায় অধিক ভুগে থাকেন। কোনো একটি বিশেষ ঘটনা, পারিবারিক আবহ বা গোপন কষ্টগুলো তাদেরকে আরও অনেক বেশি নিমজ্জিত করে দেয় নিজের মাঝে। ফলে অন্যের সঙ্গে মেলামেশায় ও সম্পর্ক তৈরি করা নিয়ে সমস্যায় ভোগেন তারা। ভুগতে শুরু করেন সোশ্যাল এংজাইটিতে। অন্যদিকে আক্রান্ত হয়ে পড়েন তীব্র বিষণ্নতায়। কাউকে নিজের সমস্যা বা কষ্টগুলো বলতে পারেন না, সমস্যার কোনো সমাধানও খুঁজে বের করতে পারেন না। সব মিলিয়ে জীবন হয়ে পড়ে দুর্বিষহ।

আপনিও কি আজকাল ভুগছেন এই মানসিক কষ্টে? তাহলে আপনারই জন্যে আমাদের এই ফিচার। এই পরিস্থিতি থেকে নিজেকে বের করে আনার জন্যে থাকছে কিছু পরামর্শ।

কষ্ট ভাগ করলে কমে

এই সত্যটি আপনি নিজেও জানেন। কিন্তু যেহেতু নিজের মাঝে গুটিয়ে গেছেন আপনি, তাই অন্য মানুষের সঙ্গে কষ্ট বিনিময় করতে পারছেন না। এ ক্ষেত্রে আস্তে আস্তে মনের কথাগুলো বিনিময় করার অভ্যাস করতে হবে। একটি ডায়েরি রাখুন, নিয়মিত নিজের মনের সব কথা তাতে লিখে রাখুন।পরবর্তী সময়ে কয়েক দিন পর নিজেই সেই কথাগুলো পড়বেন। এতে ক্রমে আপনি নিজেই নিজের সেরা বন্ধু হয়ে উঠবেন।

অন্তত একজনকে বিশ্বাস করুন

ডায়েরিতে মন খুলে লেখা তো হচ্ছে। কিন্তু তারপরেও, মানুষ হিসেবে অন্য একজন মানুষের সঙ্গ খুবই জরুরি। না, সবাইকে বিশ্বাস করার কথা বলছি না। নিজের জীবন থেকে কেবল একজন মানুষকে বেছে নিন, একজন মাত্র মানুষকে। তাকে আস্তে আস্তে নিজের ভাবনাগুলো শেয়ার করুন। এটা জরুরি নয় যে সবকিছু বলে ফেলতে হবে কিংবা এক দিনেই জীবনের সব কথা জানিয়ে দেয়া দরকার। আস্তে আস্তে করুন। যেটুকু চান, কেবল সেটুকুই বলুন।

ভ্রমণ করুন

নিজের মাঝেই নিজের বন্দিত্ব থেকে মুক্তি পেতে ভ্রমণ খুব চমৎকার কাজ করে। ভ্রমণ আমাদের মনের সব জানালা খুলে দেয়। ভ্রমণের কালে নানা ধরনের মানুষ, নতুন স্থান, নতুন পরিবেশের সঙ্গে আমাদের পরিচয় ঘটে। ফলে নতুনত্ব আর পরিবর্তনের সঙ্গে নিজের অজান্তেই মন খাপ খাওয়াতে শুরু করে। এ ছাড়াও ভ্রমণ আমাদের মনের খোরাক যোগায়, মনকে কানায় কানায় আনন্দে পূর্ণ করে তোলে।

পোষা প্রাণী

ইন্ট্রোভার্ট ও বিষণ্ন মানুষদের ক্ষেত্রে একটি পোষ্য প্রাণী ম্যাজিকের মতো কাজ করে। বিষণ্ণতা ও নিঃসঙ্গতা দূর করতে তা খুবই সহায়ক।

এ ছাড়াও যা করতে পারেন

নিজেকে মুক্ত করে দিতে চেষ্টা করতে হবে আপনার নিজেকেই। তাই, ইচ্ছের বিরুদ্ধে হলেও অন্য মানুষকে সময় দিন। অন্যকে সুযোগ দিন আপনার জীবনে প্রবেশ করতে। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান, বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটান, পারিবারিক উৎসব-অনুষ্ঠানগুলোতে অংশ নিন। সবকিছুতে নিতে হবে না, কেবল যেটুকু ভালো লাগে, সেটুকুই উপভোগ করুন। সপ্তাহে একটি দিন বেড়িয়ে আসুন। কোথাও খেতে যান বা একটি সিনেমা দেখুন। নিজেকে চার দেয়ালের মাঝে বন্দী করে রাখবেন না।

মনে রাখবেন, আপনার নিজের চেয়ে বড় বন্ধু আপনার জীবনে আর কেউ-ই নেই। নিজেকে ভালো রাখার দায়িত্ব আপনার নিজেরই।

প্রিয় লাইফ/আজাদ চৌধুরী