প্রতীকী ছবিটি ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত

আগুন লাগার আশঙ্কা এড়াতে রোজ রাতে অবশ্যই করবেন যে কাজগুলো

রুমানা বৈশাখী
বিভাগীয় প্রধান (প্রিয় লাইফ)
প্রকাশিত: ০২ এপ্রিল ২০১৯, ২২:৪০
আপডেট: ০২ এপ্রিল ২০১৯, ২২:৪০

(প্রিয়.কম) বিগত বেশ কিছুদিন যাবৎই একের পর এক দুর্ঘটনার ধাক্কায় বিপর্যস্ত দেশবাসী। লক্ষ করলে দেখবেন যে বেশির ভাগ দুর্ঘটনাই অগ্নিকাণ্ড। কয়েক মুহূর্তের অসতর্কতায় মুহূর্তের মাঝে পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে বড় বড় ভবন। অসংখ্য মানুষ নিঃস্ব হয়ে পড়ছে; যাচ্ছে অসংখ্য প্রাণ। বড় ভয়াবহ, বড় বেদনার সেই মৃত্যু।

দিনের চেয়ে রাতের বেলাতেই অগ্নিকাণ্ড ঘটার হার অপেক্ষাকৃত বেশি। কেননা সাত-আট ঘন্টা ঘুমের সময়টায় চাইলেও সবকিছুর দিকে লক্ষ রাখা সম্ভব হয় না। তাই এমন ভয়াবহ বিপর্যয়ের আশঙ্কা কমিয়ে আনতে রাতের বেলা অবশ্যই করা উচিত কিছু কাজ। এই কাজগুলো হয়তো আপনার বিরক্তিকর মনে হতে পারে। কয়েক দিন করার পর হয়তো বাদ দিয়েও দিতে পারেন। কিন্তু মনে রাখবেন, বিপদ কখনো বলে-কয়ে আসে না। আপনার এক মুহূর্তের অবহেলা যেমন ডেকে আনতে পারে ভয়ানক বিপদ, তেমনই রোজ রাতে কয়েক মিনিটের সতর্কতা বাঁচিয়ে দিতে পারে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকেও।

১। প্রথমেই বাসায় গ্যাস লাইন ও গ্যাসের চুলা চেক করুন। চুলা ভালোমতো বন্ধ হয়েছে কি না, গ্যাসের লাইন থেকে কোনোরকম গ্যাস লিক করছে কি না দেখে নিন।

২। সবচেয়ে ভালো হয় গ্যাসের চাবি ঘুরিয়ে বন্ধ করে দিলে। যারা সিলিন্ডার গ্যাস ব্যবহার করেন, তারা অতি-অবশ্যই গ্যাস মূল সিলিন্ডার থেকেই বন্ধ করে দিন।

৩। ম্যাচ বক্স বা যেকোনো দাহ্য পদার্থ রান্নাঘরের বাইরে বের করে রাখুন।

৪। রান্নাঘরের অন্তত একটি জানালা খোলা রাখুন, যেন কোনোভাবে গ্যাস লিক করলেও তা খোলা জানালা দিয়ে বাইরে চলে যায়। বৃষ্টির দিনে জানালা খোলা রাখা না গেলে অবশ্যই সকাল হলেই জানালা খুলে দিন। জানালা খোলার অন্তত মিনিট ১৫ পরেই চুলার কাজ করুন।

৫। ঘুমানোর আগে বাড়ির সব বৈদ্যুতিক সুইচ বন্ধ করে দিন। ফ্রিজ বা শোবার ঘরের ফ্যান-লাইট ইত্যাদি প্রয়োজনীয় সুইচ ছাড়া বাকি সব বন্ধ রাখুন।

৬। ওভেন বা ওয়াশিং মেশিন চালু অবস্থায় রেখে ঘুমাবেন না।

৭। দেখেশুনে অপ্রয়োজনীয় সব মাল্টিপ্লাগ কানেকশন বন্ধ রাখুন।

৮। সেলফোন চার্জে সারা রাত ফেলে রেখে ঘুমাবেন না। সামান্য ব্যাপারেও ঘটে যেতে পারে বড় দুর্ঘটনা।

৯। গিজার বা হিটার চালু রাখবেন না।

১০। এসির সংযোগ চেক করে নিন, কোনোরকম শটসার্কিট হচ্ছে কি না খেয়াল করুন।

১১। অগ্নিনির্বাপক সরঞ্জাম সব নির্দিষ্ট স্থানে আছে কি না খেয়াল করুন।

নিরাপদ থাকুন, ভালো থাকুন।

প্রিয় লাইফ/আজাদ চৌধুরী

আরো পড়ুন