বেসিস সফটএক্সপোতে অংশ নিয়েছে প্রিয়.কম। মোবাইল ইনোভেশন জোন ,স্টল নম্বর: এস২০। ছবি: শামছুল হক রিপন

সফটএক্সপোতে ১০ জোন

রাকিবুল হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২০ মার্চ ২০১৯, ১৮:৪৮
আপডেট: ২০ মার্চ ২০১৯, ১৮:৪৮

(প্রিয়.কম) ‘টেকনোলজি ফর প্রসপারিটি’ স্লোগানকে সঙ্গী করে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) শুরু হয়েছে বেসিস সফটএক্সপো ২০১৯।

২০ মার্চ, বুধবার চলছে প্রদর্শনীর দ্বিতীয় দিন। ২১ মার্চ পর্যন্ত চলবে এই প্রদর্শনী।

এবারের বেসিস সফটএক্সপোকে কয়েকটি জোনে ভাগ করা হয়েছে। এসব জোনে নির্দিষ্ট ক্যাটাগরির প্রতিষ্ঠানগুলো স্থান পেয়েছে।

সফটওয়্যার সেবা প্রদর্শনী জোন

বেসিস সফটএক্সপোর প্রদর্শনী এলাকার ১০টি জোনের মধ্যে ‘সফটওয়্যার শো-কেসিং জোন’ অন্যতম। এ জোনে স্থানীয় প্রতিষ্ঠানের তৈরি বিভিন্ন পরীক্ষিত সফটওয়্যার, যা ব্যাংকিং সলিউশন থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য খাত, উৎপাদন খাতে ব্যবহৃত হচ্ছে, সেগুলো স্থান পেয়েছে।

এই জোনে রয়েছে অ্যাক্সেস টেলিকম, অ্যাডভান্স ইকুইপমেন্ট, আমবালা আইটি, এরিনা ফোন বিডি, এসটিজিডি, এটিআই, বাংলাদেশ এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট কোম্পানিসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান।

ভ্যাট জোন

বেসিস সফটএক্সপোতে ভ্যাট জোনে অংশ নিয়েছে সম্প্রতি এনবিআর অনুমোদিত ভ্যাট সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলো।

বছরে পাঁচ কোটি টাকা বা তার বেশি টার্নওভারের প্রতিষ্ঠানের বিক্রি বা লেনদেন তথ্য এনবিআর অনুমোদিত সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে। এ বছর থেকে এনবিআর এ নিয়ম চালু করে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সব নিয়ম মেনে ১১টি প্রতিষ্ঠান ভ্যাট সফটওয়্যার তৈরি করেছে। এনবিআর অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো—ইউওয়াই সিস্টেমস লিমিটেড, ইনোভিয়া টেকনোলজিস লি. ধ্রুপদি টেকনো কনসোর্টিয়াম লি., ডিভাইন আইটি লি., সিম্ফনি সফট টেক লি., বেস্ট বিজনেস বন্ড লি., সিএসএল সফটওয়্যার রিসোর্সেস লি., এলাইড ইনফরমেশন টেকনোলজি লি., যুব সফট ইনফরমেশন সিস্টেমস লি., মিডিয়াসফট এবং ইউনিসফট সিস্টেমস।

এক্সপেরিয়েন্স জোন

এক্সিপেরিয়েন্স জোনে রয়েছে অগমেন্টেন্ড রিয়ালিটি, ভার্চ্যুয়াল রিয়ালিটির অনেক পণ্য; যা ছুঁয়ে দেখে বা পরখ করে বোঝা যাবে।

এই জোনে অংশ নিয়েছে ব্রেইন স্টেশন ২৩, বিজনেস অটোমেশন, কাজ সফটওয়্যার, সেবা টেকনোলজিস, টাইগার আইটি বাংলাদেশসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান।

ডিজিটাল কমার্স জোন

উন্নত ও অভাবনীয় সব দেশীয় ই-কমার্স প্লাটফর্মের মাধ্যমে এখন ঘরে বসেই অনলাইনে শপিং করা যাচ্ছে। এরই স্বাদ দিতে বেসিস সফটএক্সপোতে করা হয়েছে ‘ই-কমার্স জোন’। এনআরবি বাজার, বাগডুমসহ বিভিন্ন ডিজিটাল কমার্স প্রতিষ্ঠান এতে অংশ নিয়েছে।

উইমেন জোন

বেসিস সফটএক্সপোতে প্রথম বারের মতো করা হয়েছে উইমেন জোন। এখানে নারীদের দ্বারা পরিচালিত তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান সেবা ও পণ্য প্রদর্শন করছে।

ইন্ডাস্ট্রি ৪.০ জোন

দেশে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রভাব পড়েছে। এর সঙ্গে মানুষের পরিচয় করিয়ে দিতে প্রদর্শনী এলাকায় করা হয়েছে ইন্ডাস্ট্রি ৪.০ জোন। এই জোনে রয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, মেশিন লার্নিং, আইওটি সংশ্লিষ্ট কাজ করা স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলো।

উদ্ভাবনী মোবাইল সেবা জোন

দেশে অর্ধেকেরও বেশি মানুষ মোবাইল ব্যবহার করছে। বাড়ছে স্মার্টফোনের ব্যবহার। বিভিন্ন অ্যাপস এখন নিয়ন্ত্রণ করছে জীবন। এর সঙ্গে মানুষের পরিচয় করিয়ে দিতে বেসিস সফটএক্সপোর প্রদর্শনী এলাকার ‘মোবাইল ইনোভেশন জোন’ করা হয়েছে। স্থানীয় প্রতিষ্ঠানের তৈরি অ্যাপস এবং উদ্ভাবনী মোবাইল সেবা রয়েছে এই জোনে।

ডিজিটাল এডুকেশন জোন

প্রযুক্তির ব্যবহারের পাশাপাশি সবকিছু ডিজিটাল হয়ে যাচ্ছে। শিক্ষা ক্ষেত্রেও ধীরে ধীরে যোগ হচ্ছে প্রযুক্তি। দেশে বর্তমানে প্রজেক্টর দিয়ে ক্লাসে পড়ানোর চর্চা শুরু হয়েছে। ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত ক্লাসরুম তৈরির কাজও চলছে। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় কীভাবে প্রযুক্তির ব্যবহার বৃদ্ধি করা যায়, এসব নিয়ে করা হয়েছে ডিজিটাল এডুকেশন জোন।

ফিনটেক জোন

প্রতিনিয়ত জনপ্রিয় হচ্ছে ডিজিটাল পেমেন্ট ও ফিন্যান্সিয়াল টেকনোলজি। পাশাপাশি আইটিনির্ভর ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে এই সেক্টরে বেড়েছে সরকারি ও বেসরকারি বিনিয়োগ। দেশের মানুষের সঙ্গে ফিনটেক প্রতিষ্ঠানগুলোর যোগাযোগ বাড়াতে সফটএক্সপোতে করা হয়েছে ফিনটেক জোন। এতে অংশ নিয়েছে আইপেসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান।

এসব জোন ছাড়াও সফটএক্সপোতে রয়েছে আইটিইএস ও বিপিও জোন।

প্রিয় প্রযুক্তি/আজাদ চৌধুরী

আরো পড়ুন