এই খাবারগুলো খান বেশি করে। ছবি: সংগৃহীত

পুরুষদের নিয়মিত খাওয়া উচিত এই ৭টি খাবার

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৯
আপডেট: ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৯

(প্রিয়.কম) স্বাস্থ্য সচেতন পুরুষদের মাঝে শরীরচর্চা করার প্রবণতা বেশি দেখা যায়। ডায়েট করার চেয়ে জিমে যাওয়াটাকেই তারা বেশি পুরুষোচিত মনে করেন। আসলে কিন্তু শরীরচর্চার পাশাপাশি পুরুষেরও খাবারের প্রতি মনোযোগ দেওয়া উচিত। জেনে নিন যে ৭টি খাবার নিয়মিত খাবেন, এবং যে ৫টি খাবার খাবেন না!

১) খেতে হবে- ফ্যাটি ফিশ

যেসব সামুদ্রিক মাছে চর্বি আছে, সেগুলো খেতে হবে। কারণ এগুলোতে থাকা ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি এসিড ভিটামিন ডিয়ের খুবই ভালো উৎস।

খাওয়া যাবে না- জাংক ফুড

জাংক ফুড যে খাওয়া ভালো নয় এটা সবাই জানে। কিন্তু তারপরেও তা খেয়ে থাকেন অনেকেই। বিশেষ করে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, ডোনাট ইত্যাদি।

২) খেতে হবে- বেরি জাতীয় ফল

সকালে খাওয়ার ওটে বা সিরিয়ালে বেরি ধরণের এক মুঠ ফল দিয়ে নিতে পারেন। কারণ এগুলোতে আছে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা বয়সের সাথে সাথে মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখে।

খাওয়া যাবে না- প্রক্রিয়াজাত স্যুপ

সময় বাঁচাতে ইনস্ট্যান্ট স্যুপ বা নুডলস খেয়ে নেন অনেকেই। এতে খরচটাও কম হয়। কিন্তু এতে পুষ্টি আসলে অনেক কম থাকে, আর অনেক বেশি সোডিয়াম থাকে যা আপনার হৃদ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

৩) খেতে হবে- হোল গ্রেইন

হৃদযন্ত্রের সুস্থতার জন্য হোল গ্রেইন নিয়মিত খেতে হবে। এতে থাকে বেশি পরিমাণে খাদ্য আঁশ আর অনেকটা পুষ্টি। বিশেষ করে মধ্যবয়সী পুরুষদের জন্য এই খাবারটি জরুরি।

খাওয়া যাবে না- চর্বিযুক্ত মাংস

মাংসে চর্বি থাকলে তা মজাদার হয় বটে। কিন্তু তা স্বাস্থ্যের জন্য মোটেই ভালো নয়। মুরগির মাংস ও মাছ থেকে আমিষের চাহিদা পূরণ করুন। এর পাশাপাশি গরু ও খাসির মাংস খেতে পারেন কিন্তু কম পরিমাণে, মাঝে মাঝে।

৪) খেতে হবে- গাড় রঙের শাক-সবজি

প্রোটিনের পাশাপাশি শাক সবজি খেতে হবে। আর এর রঙ যত গাড়, তা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য তত ভালো। এগুলতে থাকে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আর্থ্রাইটিস, হৃদরোগ এমনকি ক্যান্সারের ঝুঁকি কম রাখে।

খাওয়া যাবে না- অ্যালকোহল

অ্যালকোহল অতিরিক্ত সেবনে দেখা দিতে পারে লিভার সিরোসিস, প্যানক্রিয়াটাইটিস, কিছু ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ ও মানসিক সমস্যা। এর বদলে বেশি করে পানি পান করুন।

৫) খেতে হবে- বাদাম ও শস্যদানা

স্ন্যাকস হিসেবে চিপস বা বিস্কুট না খেয়ে অল্প করে কাঠবাদাম বা সূর্যমুখীর বীজ খেতে পারেন। এতে যেমন পেট ভরা থাকবে তেমন স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে। বাদাম থাকে স্বাস্থ্যকর ফ্যাট, খনিজ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস। এগুলোতে প্রচুর ভিটামিন ই থাকে যা হৃদস্বাস্থ্যের জন্য উপকারি।

খাওয়া যাবে না- ফাস্ট ফুড বার্গার

কেনা বার্গারে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট ও সোডিয়াম থাকে যাতে শরীর ফেঁপে যায় ও হাইপারটেনশন দেখা দিতে পারে। এর বদলে বাসায় তৈরি করে নিতে পারেন স্বাস্থ্যকর বার্গার।

৬) খেতে হবে- দই

দই বা অন্যান্য ফার্মেন্টেড খাবার শরীরের জন্য উপকারী। বিশেষ করে আমাদের অন্ত্র সুস্থ রাখতে তা খুবই জরুরী। তাই দই খাওয়া উচিত নিয়মিত।

৭) খেতে হবে- অ্যাভোকাডো

অ্যাভোকাডো খুবই স্বাস্থ্যকর একটি ফল কারণ এতে আছে মনোআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট ও পটাসিয়াম, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য খুবই উপকারী। এতে আরো আছে ফাইবার, ভিটামিন ই, বি ভিটামিন ও ফলিক এসিড। সকালের নাস্তায় খেতে পারেন অ্যাভোকাডো।

সুত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট

প্রিয় লাইফ/ আর বি