(প্রিয়.কম) সাফল্যের মুকুট মাথায় পরতে কে না চায়? প্রত্যেকটি মানুষই কঠোর পরিশ্রম করে সফলতা অর্জন করার জন্যে। কেউ সফল হয় আবার কেউবা ব্যর্থতাকেই আপন করে নেয়। কিন্তু এটি মোটেই কাম্য নয়। আমাদের প্রত্যেক কাজের শেষে থাকে ভালো-মন্দের কারুকার্য। 

আমরা অনেকেই কোন কাজে ব্যর্থ হয়ে গেলে মুষড়ে পড়ি, ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যাই। কিন্তু আপনি কি জানেন সবকিছুরই একটি কারণ আছে? আপনি যে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস ব্যর্থ হচ্ছেন, সেটিরও একটি কারণ আছে। একটু সময় নিয়ে নিজেকে বুঝুন ও জানুন, দেখবেন সবকিছু খুব সহজ হয়ে গিয়েছে এবং সফলতার মুকুট আপনি পরিধান করতে পারছেন। 

আজকের ফিচারে আপনাকে জানানো হবে কোন কোন কাজগুলোর জন্য আপনি প্রতিনিয়ত ব্যর্থ হচ্ছেন এবং এগুলো চলতে থাকলে আপনি কখনোই সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে পৌছবেন না। চলুন তবে জেনে আসা যাক-

আপনি জানেন না সফলতা ব্যাপারটা আসলে কি

সফলতা অর্জন না করার অন্যতম প্রধান কারণ হলো আপনি জানেনই না সফলতা কী! হয়তো আপনি অনেক বেশি সিনেমা দেখেন সেখান থেকে কোন ধারণা নিয়ে নিজের মধ্যে সাফল্যের সংজ্ঞা আয়ত্ব করে নিয়েছেন। যখন অন্য কারো মুখে সাফল্যের কথা আপনি শোনেন, সেটা কিন্তু আপনার ক্ষেত্রে না-ও খাটতে পারে। এটাই স্বাভাবিক। সুতরাং, সফলতা অর্জন করার জন্য নিজে বুঝতে চেষ্টা করুন সফলতা কী। 

কোন ব্যাপারে আপনি উদ্যমী আপনি জানেন না

আপনি সব সময় এক ধারণা থেকে অন্য ধারণায় ঝাঁপিয়ে বেড়ান, যেটি শুনতে একটু ভালো লাগে সেদিকেই আপনার মনোযোগ গিয়ে পড়ে। অপরাহ উইনফ্রে একবার বলেছিলেন, 'উদ্যম হলো শক্তি। উদ্যমী হওয়ার দরুণ আপনি যে শক্তিটা পাচ্ছেন সেটিকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করুন'। তিনি এটি অনুধাবন করতে পেরেছেন যে কোন বিষয়ে উদ্যমী না হওয়া সত্ত্বেও আপনি যদি সেটি নিয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন তবে বেশিদূর পৌছতে পারবেন না।

নিজের জীবনকে পরীক্ষা করুন। কোন ব্যাপারটা আপনাকে আনন্দিত করে তোলে, কোন বিষয়ে আপনি উদ্যমী সেটি বুঝতে চেষ্টা করুন। একেবার শুরু করলেই দেখবেন, সাফল্য আপনার দ্বারপ্রান্তে পৌছে গিয়েছে। 

আপনি কাজে সময় দিতে চান না

আপনি হয়তো ম্যালকোম গ্ল্যাডওয়েল এবং তার ১০,০০০ ঘণ্টার নিয়মের কথা শুনেছেন। তিনি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আবিষ্কার করেছেন যে পৃথিবীর সবচেয়ে সফল ব্যক্তিগণ কঠোর পরিশ্রমেই তাদের সময় ব্যয় করেছেন। তারা তাদের কারুশিল্প এবং গবেষণায় সময় বিনিয়োগ করেছেন। ব্যর্থ হলেও বারংবার চেষ্টা করে গিয়েছেন। আপনি চেয়েছেন বলেই যে সাফল্য আপনার দ্বারপ্রান্তে চলে আসবে, এমনটা কিন্তু নয়। আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। কেবল তখনই আপনি সফল হবেন। 

আপনি সঠিক মানুষের সঙ্গে মেশেন না

জিম রনের একটি বিখ্যাত উক্তি আছে, 'আপনি যে পাঁচজনের সঙ্গে মেশেন, তাদেরই প্রতিফলন আপনি'

আমাদের এমন মানুষের সঙ্গে মেশা উচিৎ যাদের প্রত্যেকের লক্ষ্য সাফল্য অর্জন করা। যখন আপনার চারপাশ ইতিবাচকতায় পরিপূর্ণ থাকে, তখন সহজেই আপনি সফলতার পথে অগ্রসর হতে থাকবেন। এতে করে আপনি অসংখ্য সফল ব্যক্তিবর্গের সঙ্গেও মিশতে পারবেন। এভাবে আপনার একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে উঠবে।

আপনার মানসিকতা ইতিবাচক নয়

আশেপাশের সবকিছু আপনার কাছে অসহ্য মনে হয়। আপনি সাফল্যের ছিটেফোঁটাও কোথাও দেখেন না। পৃথিবীর কোথাও ইতিবাচকতার বিন্দুমাত্র আপনি খুঁজে পান না। আপনি যখনই নিজের মানসিকতা বদলে নেতিবাচকতা থেকে দূরে নিয়ে যাবেন, তখনই আপনি নতুন এক জগতের সন্ধান পাবেন। সুতরাং, নিজেকে এবং নিজের চিন্তা-ভাবনাগুলোকে ইতিবাচক করার চেষ্টা করুন। 

সবশেষে এই বলা যায় যে, ওপরের বৈশিষ্ট্যগুলো যদি আপনার চরিত্রে থেকে থাকে, তাহলে সেগুলোকে বদলে ফেলুন আজই। নিজেকে পুনরায় গঠন করা শুরু করুন। সফলতা অর্জন করার যে পন্থাসমূহ রয়েছে, সে অনুযায়ী চলতে শুরু করুন। আপনিই জয়ী হবেন। 

সূত্র: Forbes, Success

সম্পাদনা: কে এন দেয়া