(প্রিয়.কম) জাতিগত সহিংসতায় পালিয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে মিয়ানমারকে চাপ অব্যাহত রেখেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রোহিঙ্গা সংকট সমাধান না হওয়া পর্যন্ত আরও চাপ সৃষ্টি করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যা, শরণার্থী ও অভিবাসন ব্যুরোর ভারপ্রাপ্ত অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি সাইমন হেনশ।

০৩ নভেম্বর শুক্রবার বিকেলে কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা শরনার্থী পরিদর্শন শেষে এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মতো একটি ছোট ও জনসংখ্যা আধিক্যের দেশ বিপুল সংখ্যক মানুষকে আশ্রয় দিয়ে নজির সৃষ্টি করেছে। এজন্য বাংলাদেশ প্রশংসার দাবিদার। এ আমরা বাংলাদেশের পাশে আছি এবং সমস্যাটির সমাধান না হওয়া পর্যন্ত থাকব।

প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশমুখী রোহিঙ্গা জনস্রোত। ছবি: ফোকাস বাংলা

প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশমুখী রোহিঙ্গাদের জনস্রোত। ছবি: ফোকাস বাংলা

এর আগে, শুক্রবার সকালে ২২ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছান। বিকেলে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সার্বিক পরিস্থিতি ঘুরে দেখেন ও তাদের খোঁজখবর নেন। এসময় আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) এর শিশুদের বিভিন্ন স্কুল পরিদর্শন করেন এবং শিশুদের সঙ্গে সময় কাটান তারা।

প্রতিনিধি দল যুক্তরাষ্ট্রর গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও শ্রম ব্যুরো ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি স্কট বাসবি, দক্ষিণ ও সেন্ট্রাল এশিয়া বিষয়ক ব্যুরোর ভারপ্রাপ্ত ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি টম ভাজদা, পূর্ব-এশিয়া ও প্যাসিফিক বিষয়ক ব্যুরোর অফিস ডিরেক্টর প্যাট্রিসিয়া মাহোনও রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রের এই প্রতিনিধি দলটি ৪ নভেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর শেষে মিয়ানমারে যাবেন। এসময় তারা সংকট সমাধানে দেশটির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন। এছাড়া রাখাইনে মানবিক সহায়তা ও সংবাদকর্মীদের অবাধ প্রবেশ নিশ্চিত করতে অনুমতিও চাইবেন।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল