(প্রিয়.কম) অব্যাহত সহিংসতায় সংকট গভীরতর হওয়ার পরও মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চি’র নীরবতার কারণে বিশ্ববাসী সমালোচনায় মুখর হয়ে উঠেছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে শান্তির জন্য পাওয়া নোবেল পুরস্কার এ নেত্রীর কাছ থেকে ফিরিয়ে নেওয়ার দাবিও দিনকে দিন জোরদার হচ্ছে। ইতোমধ্যে প্রায় ৪ লক্ষ ১০ হাজার ৩০১ জন মানুষ এ পিটিশনে অংশ নিয়েছেন। 

এই আবেদনে বলা হয়েছে, ‘মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চি তার দেশে মানবতার বিরুদ্ধে এই অপরাধ বন্ধ করার ক্ষেত্রে কোনো ভূমিকাই পালন করছেন না।’

মিয়ানমারে একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রচারাভিযানের জন্য ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি পার্টির নেত্রী সু চিকে ১৯৯১ সালে এই সম্মানসূচক শান্তিতে নোবেল পদক প্রদান করা হয়েছিল। 

এমারসন ইয়োনথো নামের একজন ইন্দোনেশিয়ান চেঞ্জ ডট ওআরজি’র মাধ্যমে পিটিশন শুরু করেন। পাঁচ লক্ষ স্বাক্ষর প্রত্যাশা করে এ পিটিশন শুরু করা হয়েছিল। এ পরিমাণ স্বাক্ষর পাওয়া গেলে তা ‘নওরোজিয়ান নোবেল কমিটি ২০১৬’ এর কাছে হস্তান্তর করা হবে।

তবে নোবেল কমিটি বলেছে তারা এই পুরস্কার বাতিল করবেন না।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের রাখাইনে ২৪ আগস্ট গভীর রাতে হামলার পর থেকে দেশটির নিরাপত্তাবাহিনীর নজিরবিহীন আক্রোশের শিকার হচ্ছে রোহিঙ্গারা। গুলি করে, কুপিয়ে, ধর্ষণ করে, পুড়িয়ে ফেলে হত্যা করা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের। ইতিমধ্যে ৩ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গাকে হত্য করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।  সহিংসতার শুরুর পর থেকে প্রাণ বাঁচাতে ইতিমধ্যে প্রায় ৩ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। যার সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই। 

সূত্র: চেঞ্জ ডট ওআরজি

প্রিয় সংবাদ/রিমন