(প্রিয়.কম) পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারাই মিয়ানমারে ফিরতে চান না বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছেন দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি।

রোহিঙ্গা সঙ্কট নিরসনে মিয়ানমারের নাইপেদোতে ২৫ অক্টোবর বুধবার সু চির সঙ্গে আলোচনা করেন স্বারাষ্ট্রমন্ত্রী। এসময় পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা দেশে ফিরতে না চাওয়ার বিষয়টি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে সু চি অবহিত করেন বলে ২৬ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “অং সান সু চি আমাকে বলেছেন, ‘তোমরা তাদের (রোহিঙ্গা) ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য উৎসাহিত করো। তারা তো এখন আসতে চায় না।”

সু চি’র কথার উত্তর প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ‘আমি বলেছি, তারা কেন আসতে চায় না? সেটা আপনি নিশ্চয়ই জানেন। তাদের আসার পরিবেশ নাই। তাই তারা তারা আসতে চায় না।’

আনান কমিশনের সুপারিশ আমলে নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমি ‍সু চিকে বলেছি, কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী কাজ করো। তোমাদের দেশে শান্তি এলে আমরাও বাঁচি। তোমরাও এই অশান্তি থেকে রেহাই পাবা।’

উল্লেখ্য, গত ২৪ অগাস্ট গভীর রাতে পুলিশ পোস্টে হামলাকে কেন্দ্র করে রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযান শুরু হয়। এরপর থেকে বাংলাদেশে প্রায় ৬ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে আসে। নতুন করে রোহিঙ্গা ঢল নামে। গত ২ মাসে প্রায় ৬ লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। আগ থেকে প্রায় ৪ লাখের মতো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে বসবাস করে আসছে। রোহিঙ্গাদের ওপর এ নির্যাতনকে জাতিসংঘ ‘জাতিগত নিধন’ হিসেবে অভিহিত করেছে। ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুল ম্যাক্রোঁ একে ‘গণহত্যা’ হিসেবে অভিহিত করে তীব্র নিন্দা জানিয়েছিলেন।

সেনাবাহিনী রাখাইনে রোহিঙ্গাদের হত্যা, ধর্ষণ, বাড়ি-ঘর পুড়িয়ে দেয়ার মতো মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা।

অন্যদিকে, মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের দেশের নাগরিক হিসেবে মনে করে না। তাদের রোহিঙ্গাদের অবৈধ অভিবাসী হিসেবে দেখে।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল