(প্রিয়.কম) মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে চলমান রোহিঙ্গা সংকটের প্রেক্ষিতে দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চির ‘ফ্রিডম অব গ্লাসগো’ এবং ‘অনারারি প্রেসিডেন্সি অ্যাওয়ার্ড’ বাতিল করা হয়েছে। 

রাখাইনে রোহিঙ্গা নির্যাতন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের জেরে শুক্রবার স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো সিটি কাউন্সিলে ভোটাভুটিতে সর্বসম্মতিক্রমে সু চিকে দেয়া সম্মানসূচক ‘ফ্রিডম অব গ্লাসগো’ প্রত্যাহার করা হয়। তিনি গৃহবন্দি থাকাকালে ২০০৯ সালে মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী হিসেবে তাকে এ উপাধি দেয়া হয়েছিলো।

একই দিন লন্ডন স্কুল অব ইকনোমিকস- এলএসই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়নের পক্ষ থেকে সু চিকে দেয়া অনারারি প্রেসিডেন্সি অ্যাওয়ার্ড বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়। ১৯৯১ সালে গণতন্ত্রের প্রতীক হিসেবে তাকে এ সম্মাননা দেয়া হয়। কিন্তু সম্প্রতি রাখাইনে জাতিগত নিধন ও সহিংসতা বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা না নেয়ায় এ উপাধি কেড়ে নেয়া হলো।

এর আগে রোহিঙ্গা সঙ্কটের সমাধান না হওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন শহর ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সু চিকে দেওয়া সম্মানসূচক বিভিন্ন ডিগ্রি ও নাগরিকত্ব ফিরিয়ে নেওয়ার দাবি জোরালো হয়ে উঠতে থাকে।

এরই প্রেক্ষিতে যুক্তরাজ্যের অন্যতম ট্রেড ইউনিয়ন ইউনিসন অং সান সু চিকে দেওয়া সম্মানসূচক সদস্যপদ স্থগিত করেন। ২০১০ সালে ইউনিসন তাকে  এ সম্মানসূচক সদস্যপদ দিয়েছিলো।

আর যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডের সেন্ট হিউ কলেজের মূল ভবনের প্রবেশদ্বারে থাকা সু চির একটি প্রতিকৃতি সরিয়ে নেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ। গৃহবন্দী হওয়ার পর ১৯৯৩ সালে তাকে সম্মানসূচক ডক্টরেট উপার্ধি দেয় ওই কলেজ।

প্রিয় সংবাদ/শিরিন/মিজান