(প্রিয়.কম) অং সান সু চি ‘সবাইকে রক্ষার চেষ্টা করছি’ বলে বক্তব্য প্রদানের পর যুক্তরাষ্ট্র রাখাইন রাজ্যে ‘সোনবাহিনী ও বিদ্রোহীদের মধ্যে মারাত্মক সংঘর্ষের’ তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

একই সঙ্গে শক্তিধর দেশটি সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের ওপর চলমান আগ্রসনে উদ্বিগ্ন বলে জানিয়ে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে রাখাইন রাজ্যে সাহায্যসংস্থাগুলোকে প্রবেশে অনুমতি দিতে অনুরোধ জানিয়েছে। 

জাতিসংঘ বলছে, সহিংসতায় ইতিমধ্যে ১ লক্ষ ৬৪ হাজার রোহিঙ্গা প্রতিবেশি দেশ বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে। যার অধিকাংশই মারাত্মক ক্ষুধার্ত। 

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র হিথার নওয়ার্ট সাংবাদিকদের বলেন, ‘সংখ্যালঘুদের উৎখাত করতে যে সহিংসতা চলমান রয়েছে তাতে মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে। নিরাপত্তা বাহিনী ও সশস্ত্র নাগরিকদের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া, গণধর্ষণের মতো অভিযোগ রয়েছে।’  

‘আমরা বার্মা (মিয়ানমার) নিরাপত্তা বাহিনীর সহিসংতার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।’

স্থানীয়দের ওপর পুনরায় হামলা না করতে নিরাপত্তাবাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত ২৫ আগস্ট থেকে নতুন করে সেনা অভিযান শুরু হয়। এ অভিযানে এখন পর্যন্ত ৪০০ জনকে হত্যা এবং ২৬০০ ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার কথা শিকার করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। 

এর আগে, জাতিগত দ্বন্দ্বের জেরে ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে দেশটির সেনাবাহিনীর চালানো একই রকম অভিযানে কয়েকশত রোহিঙ্গা নিহত হয়। জ্বালিয়ে দেওয়া হয় হাজারো ঘরবাড়ি। জাতিসংঘ বলছে, গত অক্টোবর থেকে ২ লক্ষ ৫০ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে এসেছে।

সূত্র: আল জাজিরা।

প্রিয় সংবাদ/মিজান