(প্রিয়.কম) এক মাসের জন্য অস্ত্রবিরতির ঘোষণা দিয়েছে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমান বিদ্রোহী আরসা বা আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি। একতরফা ভাবেই ১০ সেপ্টেম্বর রোববার থেকে এক মাসের জন্য অস্ত্রবিরতির এই ঘোষণা দেন তারা।

৯ সেপ্টেম্বর শনিবার এক বিবৃতিতে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমান বিদ্রোহীরা বলেছে, ‘তারা রাখাইনে মানবিক সংকট বিবেচনায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং তারা আশা করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীও সেখানে অস্ত্রবিরতি করবে।’

এদিকে মিয়ানমার সেনাবাহিনী কতৃক ভয়ংকর গণহত্যা-নির্যাতনের মুখে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা বিপুল সংখ্যক শরনণার্থীর দায়িত্ব জাতিসংঘের পক্ষেও সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর। 

কাতার ভিত্তিক টিভি চ্যানেল আল জাজিরাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ইউএনএইচসিআর এর বাংলাদেশ প্রধান ভিভিয়ান ট্যান বলেন, ‘স্রোতের মতো আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের পুরোপুরি সহায়তা দেয়া তাদের পক্ষে সম্ভব না।’

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত ২৫ আগস্ট থেকে নতুন করে সেনা অভিযান শুরু হয়। এ অভিযানে এখন পর্যন্ত ৪০০ জনকে হত্যা এবং ২৬০০ ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার কথা শিকার করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।  জাতিসংঘ জানিয়েছেন, আগস্ট মাস থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে ২ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করেছে।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

প্রিয় সংবাদ/শিরিন