(প্রিয়.কম) বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘আজ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমরা অংশ গ্রহণ করব। তার মানে এই নয় যে জাতীয় নির্বাচনে ও আমাদেরকে একই শর্তে অংশ গ্রহণ করতে হবে। আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই, আগামীতে একদলীয় নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না।‘

১৭ নভেম্বর শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ভাসানী) উদ্যোগে আয়োযিত এক আলোচনা সভায় তিনি এই সব কথা বলেন।

মওদুদ বলেন, আওয়ামী লীগ যদি মনে করে যে তারা ‘খুবই জনপ্রিয়’, তাহলে তাদের নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করা উচিৎ, যেখানে জনগণ তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারবে।

তিনি বলেন, ‘একটি সুষ্ঠু, অবাধ পরিবেশে আমরা একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে চাই। সেই নির্বাচনে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোট বিপুল ভোটে জয়লাভ করবে।’

গাজীপুর, খুলনা, রাজশাহী ও সিলেট সিটি করপোরেশনের গত নির্বাচনের কথা তুলে ধরে মওদুদ বলেন, ‘সেখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হেরেছিল। এই হেরে যাওয়াটা তারা সহজে মেনে নিতে পারেনি। তাই ওইসব করপোরেশনের বিজয়ী কোনো মেয়রই, অনেকে আছেন ২ বছরেও অফিসে ঢুকতে পারেননি। এই নির্বাচন করে কী লাভ?’

নির্দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের দাবি আবারও তুলে ধরে এই তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের ৯০ দিনের আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। সংসদ রেখে নির্বাচন হতে পারে না, সেই নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না।’

ন্যাপ সভাপতি অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা জহিরউদ্দিন স্বপন, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ আহমেদ, ন্যাপ-ভাসানীর মহাসচিব গোলাম মোস্তফা আখন্দ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, ইসলামিক পার্টির আবুল কাশেম, ইসলামী ঐক্যজোটের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শওকত আমিন আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল