(প্রিয়.কম) মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চলমান সেনা অভিযান এবং সহিংসতা বন্ধের দাবিতে বাংলাদেশস্থ দেশটির দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেছে গণজাগরণ মঞ্চ। ১১ সেপ্টেম্বর সোমবার গুলশান-২ চত্বরে ল্যান্ডমার্ক ভবনের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

ঘেরাও কর্মসূচি থেকে সরকার ও জনগণের প্রতি মিয়ানমারের সকল ধরনের পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার।

এ সময় মঞ্চ কর্মীরা ‘শেম অন ইউ সুচি’, ‘স্টপ জেনোসাইড, সেভ রোহিঙ্গা পিপল’, ‘সাপোর্ট রোহিঙ্গাজ’, ‘নো মোর পারসিকিউসর, সাপোর্ট রোহিঙ্গাজ’ লেখা প্ল্যাকার্ড নিয়ে ঘেরাও কর্মসূচিতে অংশ নেন। সে সময় তাদের বিক্ষোভও করতে দেখা গেছে।

অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে কর্মসূচিটির আশেপাশে ব্যারিকেড দিয়ে রেখেছে গুলশান পুলিশ।

এ সময় মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘দেশে কোনো বার্মিজ পণ্য বিক্রি হবে না। আমি ব্যবসায়ী ভাইদের আহ্বান জানাচ্ছি, আপনারা বার্মিজ পণ্য বিক্রি করবেন না। আর যেখানেই বিক্রি হচ্ছে তা জনগণ বর্জন করবে। আপনাদের কেনা পণ্য’র লাভের টাকা থেকেই তারা অস্ত্র কিনে রোহিঙ্গাদের রক্ত ঝরাচ্ছে। তাই তাদের বাণিজ্যিকভাবে কোনঠাসা করতে হবে।‘ 

বাংলাদেশ সীমান্তে রোহিঙ্গা নারী-শিশুদের লাশ ভেসে আসার কথা মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, ‘সরকার মানবিক প্রশ্নে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। ঠিক একইভাবে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত বাতিল করুন। জনগণ এ চাল দেশে ঢুকতে দেবে না। এ চালে মানুষের রক্ত লেগে আছে, দেশের জনগণ সেই চাল খেতে চায় না।’

কর্মসূচি শেষে মিয়ানমার দূতাবাসে একটি স্মারকলিপি দেন গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা।

প্রিয় সংবাদ/শান্ত