(প্রিয়.কম) চিকিৎসা নিতে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী গুলিবিদ্ধ চারজনসহ আরও পাঁচ রোহিঙ্গা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। 

১১ সেপ্টেম্বর সোমবার রাতে টেকনাফের সীমান্তবর্তী কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে তাদের হাসপাতালে ‍নেওয়া হয়।

আহতদের মধ্যে গুলিবিদ্ধরা হলেন ইমাম শরীফ (১৬), মওকত উল্লাহ (২৮), মো. তাহের (২১) ও আব্দুল করিম (১৯)। এ ছাড়া টেকনাফে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন মরিয়ম বেগম (১০) নামে এক রোহিঙ্গা শিশু।

হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আলাউদ্দিন তালুকদার জানান, রাতে টেকনাফের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের মেডিসিন স্যঁ ফ্রঁতিয়ে (এমএসএফ) হাসপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গুলিবিদ্ধ চার রোহিঙ্গাকে চট্টগ্রাম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ ছাড়া সড়ক দুর্ঘটনায় আহত এক রোহিঙ্গা শিশু মরিয়মকেও চট্টগ্রাম হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এর আগে গত ৩ সেপ্টেম্বর গুলি ও বোমার ক্ষত নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেলে ভর্তি হয়েছেন পাঁচ রোহিঙ্গা। আর ০৫ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের কুতুপালংয়ে একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পরে চট্টগ্রাম মেডিকেলে ভর্তি  হন আরও চার রোহিঙ্গা

প্রসঙ্গত, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত ২৫ আগস্ট থেকে নতুন করে সেনা অভিযান শুরু হয়। এ অভিযানে এখন পর্যন্ত ৪০০ জনকে হত্যা এবং ২৬০০ ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার কথা শিকার করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। জাতিসংঘ বলছে, অক্টোবরের পর এ পর্যন্ত সব মিলিয়ে প্রায় দেড় লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকেছে। প্রতিদিনই এ সংখ্যা বাড়ছে। 

‘গত দুই সপ্তাহে প্রায় ২ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে’ করে জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর’র।

এর আগে, জাতিগত দ্বন্দ্বের জেরে ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে দেশটির সেনাবাহিনীর চালানো একই রকম অভিযানে কয়েকশত রোহিঙ্গা নিহত হয়। জ্বালিয়ে দেওয়া হয় হাজারো ঘরবাড়ি। ওই অভিযানের বর্বরতায় বাধ্য হয়ে অন্তত ৮০ হাজার রোহিঙ্গা পার্শ্ববর্তী বাংলাদেশে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় গ্রহণ করে।

প্রিয় সংবাদ/শিরিন