(প্রিয়.কম) রংপুরে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে আগুন লাগানোর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির তদন্ত রিপোর্ট জমা দেওয়ার কথা ছিল আজ। কিন্ত তারা তদন্ত রিপোর্ট জমা দিতে পারেনি।

তদন্ত শেষ করতে আরও সাতদিন সময় নিয়েছে তদন্ত কমিটি। তবে ঘটনাটি নিয়ে পাল্টাপাল্টি দোষারোপ শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিরোধী বিএনপি।

১৯ নভেম্বর রোববার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক নষ্ট করতেই এ ধরনের আক্রমণ চলছে। আর বিরোধী দল বিএনপি বলছে, সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনাগুলোর জন্য সরকারই দায়ী।

গত ১০ নভেম্বর রংপুরের সদর উপজেলার ঠাকুরপাড়া গ্রামে হিন্দুদের বাড়িঘরে আগুন দেওয়ার ও এর ধারাবাহিকতায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে এক ব্যক্তি নিহত হওয়ার ঘটনায় জেলা প্রশাসনের গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট দেওয়ার কথা ছিল আজ। কিন্তু রিপোর্ট না দিয়ে তদন্তের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে আরও সাতদিন সময় নিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু রাফা মো: আরিফের নেতৃত্বাধীন কমিটি।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু রাফা মো: আরিফে বলেছেন, ঘটনাটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর আর সে কারণেই একটি নির্ভুল তদন্তের জন্যই তাদেরকে সময় নিতে হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘এখানে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বিচার না করে আমরা কিছু লিখতে পারব না। বিভিন্ন সেক্টরের দৃষ্টিভঙ্গি আছে, সেগুলো আমাদের বিশ্লেষণ করতে হবে। ডাটা কালেকশন হয়ে গেছে। আমরা অপেক্ষায় আছি রিপোর্ট দিয়ে দিব।’

ঠাকুরপাড়া গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের একজনের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে কয়েক হাজার ব্যক্তির মিছিল থেকে হিন্দুদের অন্তত দশটি বাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছিল। পরে এ ঘটনায় দুটি থানায় প্রায় দুই হাজারের মতো ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা করেছিল পুলিশ।

বিপুল সংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে এমন ঘটনার ভিডিও ছবিসহ নানা উপাদান থাকা সত্ত্বেও তদন্ত বিলম্বিত হচ্ছে কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তদন্ত কমিটির প্রধান আবু রাফা মো: আরিফ বলেন, ‘যেহেতু অনেক মানুষ ছিল, এখন প্রকৃত ঘটনার উৎস, কারা জড়িত ছিল, কী কারণে হয়েছে, অন্য কোনো বিষয় ছিল কী-না, এ ধরনের বিষয়গুলো তদন্তের বিষয় আছে। সে জন্যই একটু সময় লাগছে।’

যদিও জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট না এলেও বাংলাদেশের প্রধান দুটি দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিরোধী বিএনপি রংপুরের ঘটনা নিয়েও একে অন্যকে দোষারোপ করতে শুরু করেছে। 

প্রিয় সংবাদ/শান্ত