(প্রিয়.কম) ৫০ জন শিল্পী দুই মাস ধরে পরিশ্রম করে চলেছেন। তবুও শেষ হয়নি শাড়ির কাজ। সবে মাত্র তৈরি হয়েছে কয়েকটি অংশ। আগামী ২২ সেপ্টেম্বর অংশগুলো নেওয়া হবে কাঙ্খিত স্থানে। পরের দিন সব অংশ জোড়া লাগিয়ে পরানো হবে মালিকের গায়ে।

জরি-সুতো নয় শাড়িটি তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে ২০ কেজি সোনা। হ্যাঁ, ২০ কেজি সোনার এই শাড়ি পরবেন দেবী দুর্গা।

কলকাতার লেবুতলা এলাকার ৮২ বছরের পুরানো ‘সন্তোষ মিত্র স্কোয়ার সার্বজনীন’ পূজা মণ্ডপের দেবীকে পরানো হবে এই শাড়ি। শাড়িটির ডিজাইন করেছেন অগ্নিমিত্র পল।

ভারতের বিভিন্ন স্থানে তৈরি হচ্ছে শাড়ির বিভিন্ন অংশ।

ভারতের বিভিন্ন স্থানে তৈরি হচ্ছে শাড়ির বিভিন্ন অংশ। ছবি: সংগৃহীত

পূজার উদ্যোক্তা সজল ঘোষ জানান, আট ফুট লম্বা শাড়িটিতে ব্যবহৃত ২০ কেজি সোনার মূল্য ভারতীয় ছয় কোটি রুপি। মুম্বাই, মেদিনীপুর ও কলকাতার বিভিন্ন স্বর্ণশিল্পীরা আলাদাভাবে বানাচ্ছেন শাড়িটির বিভিন্ন অংশ। সেখান থেকে আসা অংশগুলো জোড়া দিয়ে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর শাড়িটি দেবী দুর্গাকে পরানোর পর বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হবে পূজার আনুষ্ঠানিকতা।

আর সোনার শাড়িসহ পূজা মণ্ডপের নিরাপত্তায় থাকছে অটোমেটিক ইন্টেলিজেন্স সিকিউরিটি। এই নিরাপত্তার আওতায় থাকা সিসিটিভিগুলো বিশেষ দূরত্বের বেশি অতিক্রমকারীকে সঙ্গে সঙ্গে স্ক্যান করে ফেলবে। ক্ষতির আশঙ্কা দেখলেই সংকেত পাঠাবে মণ্ডপ আর থানায়। তবে বিশেষ ব্যবস্থায় বানানো শাড়িটি দেবী বিসর্জনের আগেই খুলে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পূজা মণ্ডপ সংশ্লিষ্টরা।

প্রিয় সংবাদ/শান্ত