(প্রিয়.কম) প্রিয় পাঠক, আপনাদের জন্য রয়েছে আমাদের এ নতুন আয়োজন। এখানে 'দ্য সিল্ক রোড পার্টনারশিপ' এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা নাইজেল কাম্বারল্যান্ড লিখিত একটি বইয়ের সাথে আপনাদের পরিচয় করানো হবে। বইটির শিরোনাম,  'হান্ড্রেড থিংস সাকসেসফুল পিপল ডুলিটল এক্সারসাইজেস ফর সাকসেসফুল লিভিং। এবং আমরা বইটি অনুবাদ করছি "সফল ব্যক্তিদের ১০০ জীবনচর্চাশিরোনামে। সপ্তাহব্যাপী এই আয়োজনে প্রতিদিন এই বই থেকে একটি করে বিষয় আলোচনা করা হবে।আজকের আয়োজনে জেনে নিন সফল ব্যক্তিদের করা ৫২ নম্বর বিষয়টি সম্পর্কে। 

অনুশীলন ৫২- 'ভালোমতন ঘুমোন'  

ন্যাশনাল স্লিপ ফাউন্ডেশনের মতে, স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে আমরাই একমাত্র যারা ঘুমোতে দেরি করি। আপনি যদি ডলফিন কিংবা সিংহ হতেন তখন ক্লান্ত বোধ করলেই আপনি ঘুমিয়ে পড়তেন কিন্তু মানব সম্প্রদায় মধ্যরাতের সময়টুকু না ঘুমিয়ে বই পড়ে, কাজ করে কিংবা ঘুম বাদে অন্যান্য কাজ করে কাটানো পছন্দ করে।

ঘুম থেকে নিজেকে বঞ্চিত করার ফলে আপনি অনেক ধরণের সমস্যার মুখোমুখি হন। আপনি নিজের তীক্ষ্ণতা, কাজের প্রতি মনোযোগ ও ইতিবাচকতা হারিয়ে ফেলেন। শরীরের প্রতি বেশ বড়সড় ঝুঁকি হয়ে পড়ে এটি। আপনি হৃৎযন্ত্রে, যৌনজীবনে দুর্বল হয়ে পড়েন। এমনকি ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও বাড়িয়ে দেয় নিদ্রাহীনতা!

ছুটির দিনে সারাদিন ঘুমিয়ে কাটানোও কিন্তু স্বাস্থ্যের পক্ষে খুব খারাপ, মনে রাখবেন। এতে করে, পরবর্তী দিন কাজে ফিরতে আপনার বেশ বেগ পেতে হয়। সারা সপ্তাহ আপনি ঠিকমতন ঘুমালেন না কিন্তু এক ছুটির দিনে ঘুমিয়ে সব পুষিয়ে ফেললেন, তাতে কিন্তু আদৌ কোন লাভ হবে না।

দুশ্চিন্তা কখনো বিছানা অবধি নেবেন না

মানুষের জীবনে সমস্যা থাকেই। কিন্তু তার মানে এই না যে আপনি ঘুমোতে যাবার আগ মুহূর্তেও সেটি নিয়ে ভাবতে থাকবেন। এতে করে আপনার সমস্যা দূর তো হবেই না বরং আপনার ঘুমের সমস্যা দেখা দেবে। আপনি পরেরদিন সকালে যদি ঝরঝরে সতেজ হয়ে ঘুম থেকে জাগতেই না পারেন তাহলে সমস্যা সমাধানে তৎপর হবেন কী করে? নিজের ই-মেইল, দুশ্চিন্তা এমনকি প্রয়োজনীয় ফোন কলগুলোও বিছানা পর্যন্ত টেনে নেওয়ার কোন দরকার নেই। ঘুমের অন্তত এক ঘণ্টা আগে থেকেই প্রতিদিনকার ঝুটঝামেলা দূরে সরিয়ে রাখুন। তার বদলে হালকা মেডিটেশন, ইয়োগা এমনকি বই পড়ে সময় কাটাতে পারেন।

ঘুমের সময় শুধুমাত্র ঘুমোন

একটি পরিপূর্ণ ঘুম এটা নিশ্চিত করে যে আপনি পরবর্তী দিন সম্পূর্ণ শক্তি নিয়ে জেগে উঠতে পারবেন। আপনার ফোন যেন সাইলেন্ট মোডে থাকে এবং জানালা-দরজা বন্ধ করে দারুণ একটা ঘুম দেবেন। 

পরেরদিন সকালবেলা ঘুম থেকে ওঠার সময় নিজেকে খানিকটা সময় দিন। আপনার যে সময়ে ঘুম থেকে ওঠার কথা তার কিছুক্ষণ আগে অ্যালার্ম দিয়ে রাখুন। আস্তেধীরে একটু স্ট্রেচ করে পানি পান করুন। তারপর জেগে উঠুন। 

সম্পাদনা: কে এন দেয়া